• ফিচার ডেস্ক
  • ১১ মে ২০১৬ ১৩:৩৪:৪৪
  • ০৬ জুলাই ২০১৬ ১২:৩৭:১৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

স্বর্ণের চেয়ে দামি চা

এক কাপ চায়ের দাম ২৮ হাজার ডলার! বিশ্বাস হচ্ছে না? বিশ্বাসযোগ্য না হলেও ২০০২ সালে চীনের এক ধনকুবের এক কাপ চায়ের জন্য ব্যয় করেছিলেন চীনা মুদ্রায় লাখ ৮০ হাজার ইউয়ান। যা প্রায় ২৮ হাজার ডলারের সমপরিমাণ। চীনা ওই চার নাম দা হং পাও চা।

চীনে পৌরাণিক যুগ থেকেই চায়ের ভূমিকা অনন্য। চীনে চা পান ও তৈরির প্রক্রিয়া  শিল্পের পর্যায়ে পড়ে। তাও আধুনিক যুগে নয়, বহুকাল আগে থেকেই এমন রীতি ছিল।আর এই রীতি চলছে প্রায় দেড় হাজার বছর ধরে। কত ধরনের চায়ের প্রচলন যে আছে দেশটিতে তা গুনে শেষ হবে না। এর সামনে ফরাসি ওয়াইনও সাদামাটা! তাই এই চা ইচ্ছা করলেই যে কেউ কিনে পান করতে পারে না।

কথিত আছে, পৌরাণিক আমলের এক সম্রাট এই চা পান করে অলৌকিকভাবে রোগমুক্তি পান। আর রোগমুক্তির পর একটি টকটকে লাল রঙের একটি কম্বল দান করে দিয়েছিলেন সেই সম্রাট। দা হং পাও চা-কে সেই লাল কম্বলের নামানুসারে ইংরেজিতে 'বিগ রেড রোব' নামে আখ্যায়িত করা হয়।

খাঁটি দা হং পাও চা মূল্যবান ধাতু স্বর্ণেরও চেয়েও দামি। সমপরিমাণ দা হং পাও চা ও স্বর্ণের মধ্যে এই চায়ের দাম ৩০ গুণেরও বেশি! মাত্র এক গ্রাম চায়ের দাম হিসাবে খরচ করতে হবে প্রায় এক হাজার চারশ' ডলার! আর এক কাপ চা পান করতে ১০ হাজার ডলারের কিছু বেশি খরচ করতে হবে! পুরোটাই যেন রূপকথার মতো মনে হচ্ছে। তবে ঘটনা কিন্তু নিরেট সত্য!

দক্ষিণ চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের কুয়াশাচ্ছন্ন শহর উয়িশানের জিয়াও হুই নামের এক চা প্রস্তুতকারক জানালেন, এই চা পান করতে চাইলে দাম একজন রাজার কাছেও বেশি বলে মনে হবে। কিন্তু এ চা পানে প্রশান্তি অনুভব করবেন বুদ্ধের মতো।

তবে বিবিসি জানিয়েছে, সাধারণ মানের দা হং পাও চা সামর্থ্যের মধ্যেই। উয়িশানে প্রতি কেজি মাত্র একশ' ডলার। আর উচ্চ গুনমানসম্পন্ন খাঁটি দা হং পাও পেতে হলে পকেট উজাড় করে দিলেও হয়তো একটি চুমুকেরও সুযোগ হবে না! আসল দা হং পাও চায়ের একেকটি পাতা সংগ্রহ করা হয় হাতেগোণা কয়েকটা মা-গাছ বা মূল গাছ থেকে। আর এই মা গাছ, যেগুলো ভীষণ চাহিদাসম্পন্ন ও দুর্লভ দা হং পাও চায়ের উৎস, সেগুলো সংখ্যায় ভীষণ কম বলেই এই চায়ের দাম এত বেশি। প্রাচীন মা-গাছগুলো দামী বললেও কম বলা হয়, এগুলো অমূল্য- জানালেন স্থানীয় চা বিশেষজ্ঞ জিয়াঙ্গিং উ।

শুধু চীনেই নয়, দা হং পাও চায়ের শত বছরের ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮৪৯ সালে ব্রিটিশ উদ্ভিদবিজ্ঞানী রবার্ট ফরচুন উয়িশানের পার্বত্য অঞ্চলে গিয়েছিলেন এক গোপন লক্ষ্য নিয়ে। ব্রিটিশ উপনিবেশ আমলে বিশ্বজুড়ে দাপুটে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কৃষিভিত্তিক শিল্পের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অংশ ছিল তার ওই সফর। তখন ব্রিটিশদের মধ্যে চায়ের চাহিদা ও চায়ের প্রতি মুগ্ধতা ছিল বেশি। চীনেই সে চা তারা পেল। চীনের তুলনায় তৎকালীন ব্রিটেনে চা জন্মাত খুবই অল্প পরিমাণে। ফলে চীন ও ব্রিটেনের বাণিজ্যে বিশাল পার্থক্য গড়ে দিয়েছিল চা একাই।

দা হং পাও চায়ের সহস্রবর্ষী মা গাছগুলো খুব অল্প জায়গার মধ্যে সীমিত। সময়ের পরিক্রমায় গাছগুলো কেবল পুরোনোই হচ্ছে। আর যত পুরোনো হচ্ছে উৎপাদন তত কমছে। তাই ভবিষ্যতে যে এই চা হীরার চেয়ে দামি হয়ে উঠবে তা বলাই যায়।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

চা চীন

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.3256 seconds.