• ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৯:২৪:৩৭
  • ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৯:২৪:৩৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

জাবিতে উপাচার্য অপসারণের দাবিতে ফের বিক্ষোভ

ছবি : বাংলা

জাবি প্রতিনিধি :

দীর্ঘ বন্ধের পর আজ সকাল থেকে চালু হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হল সমূহ। আর বন্ধ ক্যাম্পাস খোলার পরেই পূর্ব ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে অপসারণের দাবিতে এ বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা।

৫ ডিসেম্বর, বৃহস্পতিবার দুপুরে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর ব্যানারে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুরাদ চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়। এরপর বিভিন্ন সড়ক ও প্রশাসনিক ভবন প্রদক্ষিণ করে বটতলা এলাকায় গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্যদিয়ে শেষ হয়।

সমাবেশে গত ৫ নভেম্বরে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার নিন্দা ও এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে দর্শন বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ােল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, 'গত ৫ নভেম্বর উপাচার্যের মদতে ছাত্রলীগ আমাদের যৌক্তিক আন্দোলনে নির্মম হামলা চালিয়েছিল। এই উপাচার্যের দুর্নীতির খতিয়ান দীর্ঘ হচ্ছে। বর্তমান সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে 'জিরো টলারেন্স' নীতি আমরা তা জাবির ক্ষেত্রেও দেখতে চাই। আমরা আন্দোলনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়কে কালিমামুক্ত করতে চাই।'

জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুশফিক উস সালেহীন বলেন, 'বর্তমান প্রশাসন হল খুলে দিয়েছে যা, শিক্ষার্থীদের একটি বিজয়। ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দিয়ে উপাচার্য আমাদের ওপর ঠিক একমাস আগে হামলা চালিয়েছিল। আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে উস্কানী দিলে জাহাঙ্গীরনগর আবার অস্থির হবে।'

ছাত্রফ্রন্টের (মার্ক্সবাদী) বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত দের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের জাবি শাখার আহ্বায়ক শাকিল উজ জামান।

সমাবেশ শেষে আগামী ১০ ডিসেম্বর উপাচার্যের দুর্নীতির খতিয়ান প্রকাশ করা হবে বলে ঘোষণা দেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগরের সমন্বয়ক অধ্যাপক রাইহান রাইন।

এদিকে গতকালের সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল আবাসিক হল খুলে দেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে হলে ফিরতে শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা। রবিবার থেকে শুরু হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম।

এর আগে গত ৫ নভেম্বর উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে তার বাসভবনের সামনে অবস্থানরত আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ। এ ঘটনায় প্রায় শিক্ষক ও সাংবাদিকসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়। এর প্রেক্ষিতে ওইদিন সিন্ডিকেটের এক জরুরী সভায় অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে কতৃপক্ষ।

বাংলা/এএএ

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0600 seconds.