• বাংলা ডেস্ক
  • ২২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১০:১৬:৩১
  • ২২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১০:১৬:৩১
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষাধিক

মারাত্মক ডিমেনশিয়া ঝুঁকিতে দেশ

ছবি : প্রতীকী

বর্তমান যুগে এসে বিশ্বজুড়েই বাড়ছে অনিদ্রাজনিত নানা রোগ। এর মধ্যে ডিমেনশিয়া মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। আর বিশ্বের যে-সকল দেশ মারাত্মক ডিমেনশিয়া ঝুঁকিতে রয়েছে, বাংলাদেশ তার মধ্যে অন্যতম। নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে এ রোগে আক্রান্তের হার বেশি। 

বর্তমানে পৃথিবীজুড়ে এই ডিমেনশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পাঁচ কোটি। ২০৫০ সাল নাগাদ সংখ্যাটা ১৫ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে। বাংলাদেশে বর্তমানে আনুমানিক ১০ লাখেরও বেশি মানুষ ভুগছেন এই ডিমেনশিয়ায়। 

গতকাল ২১ ডিসেম্বর, শনিবার ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব নিউরো সায়েন্স হাসপাতাল মিলনায়তনে ‘ডিমেনশিয়া কেয়ার ফাউন্ডেশন’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও ডিমেনশিয়া বিষয়ক জাতীয় সম্মেলনে এসকল তথ্য জানানো হয়।

৬৫ বছরের বেশী বয়সীদের মধ্যে বেশি দেখা দেয় ডিমেনশিয়া। এ রোগ দেখা দিলে আক্রান্ত ব্যক্তির স্মৃতিভ্রষ্টতা দেখা দেয়। তারা সাধারণত কিছুই মনে রাখতে পারেন না। খানিক আগের বিষয়ও ভুলে যান। একই কথা বারবার জিজ্ঞেস করেন। এ রোগের কোনো চিকিৎসাও নেই। তবে সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ডিমেনশিয়ায় আক্রান্তদের সুস্থ রাখা সম্ভব।

ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দ্বীন মোহাম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ফ্রাঙ্ক শেফার।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ডিমেনশিয়া কেয়ার ফাউন্ডেশনের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয় বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। এছাড়াও সম্মেলনে ডিমেনশিয়ার বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক প্রেক্ষাপট, চিকিৎসা, সেবা ও সমস্যা, বাংলাদেশে ডিমেনশিয়া নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতা ও ভবিষ্যৎ করণীয় নিয়ে আলোচকরা আলোচনা করেন।

আরো বক্তব্য রাখেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. হেলাল উদ্দীন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রোগ্রাম ম্যানেজার (এনসিডি) ডা. মো. রেজওয়ানুল করিম প্রমুখ। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালের যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম সম্মেলনের সমাপনী বক্তব্য রাখেন।

বাংলা/এসএ

 

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0226 seconds.