• অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
  • ০১ জানুয়ারি ২০২০ ১২:১৪:৩৪
  • ০১ জানুয়ারি ২০২০ ১৩:৫৫:৪১
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মাসব্যাপী বাণিজ্যমেলা শুরু

স্মৃতি সৌধের আদলে নির্মাণ করা হয়েছে মূল ফটক। ছবি : সংগৃহীত

মাসব্যাপী ২৫তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ ১ জানুয়ারি, বুধবার বেলা ১১টায় রাজধানীর শেরে-বাংলা নগরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের পশ্চিম পাশের মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে এ মেলার উদ্বোধন করেন তিনি। 

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ, এফবিসিসিআই'র সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম উপস্থিত ছিলেন। 

মেলার আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এবারের বাণিজ্য মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির মোট প্যাভিলিয়ন রয়েছে ১১২টি। এছাড়া ১২৮টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও বিভিন্ন ক্যাটাগরির ২৪৩টি স্টল অংশ নিচ্ছে মেলায়। এর মধ্যে সাধারণ প্যাভিলিয়ন ১৩টি, সাধারণ মিনি প্যাভিলিয়ন ৫৯টি, প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন ৬৪টি, প্রিমিয়ার মিনি প্যাভিলিয়ন ৪৩ টি, রেস্তোরাঁ ২টি, স্ন্যাক্স বুথ ৭টি, প্রিমিয়ার স্টল ৮৪টি, সংরক্ষিত প্যাভিলিয়ন ৬ টি, সংরক্ষিত মিনি প্যাভিলিয়ন ৮টি, সাধারণ স্টল ১০৭টি, ফুড স্টল ৩৫ টি, বিদেশি প্যাভিলিয়ন ২৭টি, বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়ন ১১টি এবং বিদেশি প্রিমিয়ার স্টল ১৭টি স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এবার মেলায় প্রবেশ টিকিটের মূল্য ১০ টাকা বাড়ানো হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্কদের টিকিটের মূল্য ৪০ টাকা ও অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা করা হয়েছে। অনলাইন ও কিউআর কোডের মাধ্যমেও টিকিট সংগ্রহ করা যাবে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্র জানিয়েছে, এ বছর মেলায় তৈরি পোশাক, হোমটেক্স, ফেব্রিকস, হস্তশিল্প, পাট-পাটজাত পণ্য, চামড়া-চামড়াজাত পণ্য, তৈজষপত্র, সিরামিক, প্লাস্টিক পণ্য, পলিমার পণ্য, কসমেটিকস হারবাল ও প্রসাধনী সামগ্রী। থাকবে খাদ্য ও খাদ্যজাত পণ্য, ইলেকট্রিক ও ইলেকট্রনিকস সামগ্রী, ইমিটেশন ও জুয়েলারি, নির্মাণ সামগ্রী ও ফার্নিচারের স্টল অংশ নিচ্ছে।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, ৩২ একর জমির ওপর ভিন্ন আঙ্গিকে সাজানো হয়েছে এ বছরের মেলা প্রাঙ্গন। দর্শনার্থীদের জন্য ভেতরে খোলামেলা স্থান রাখা হয়েছে। এবার জাতীয় স্মৃতি সৌধের আদলে সেজেছে মেলার মূল ফটক। সঙ্গে থাকছে পদ্মা সেতুর মডেলও।

মেলায় ডিজিটাল এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার রাখা হয়েছে, যাতে সহজেই ক্রেতা-দর্শনার্থীরা নির্দিষ্ট স্টল ও প্যাভিলিয়ন খুঁজে পেতে পারেন। জানুয়ারি মাসজুড়ে চলবে মেলা। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকবে মেলা প্রাঙ্গন।

এ বছর মেলায় অংশগ্রহণকারী ২১টি দেশ হচ্ছে- ভারত, ভুটান, নেপাল, মালদ্বীপ, পাকিস্তান, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইরান, তুরস্ক, মরিশাস, ভিয়েতনাম, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও অস্ট্রেলিয়া।

বাংলা/এসএ

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0654 seconds.