• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৭ জানুয়ারি ২০২০ ২০:১১:৩৮
  • ০৭ জানুয়ারি ২০২০ ২০:১১:৩৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

যে গানটি সূচনা করেছে বিশ্বব্যাপী আন্দোলনের

ছবি: সংগৃহীত

উন বিয়োলাদর এন তু কামিনো বা তোমার পথে ধর্ষক। এটা হল যৌনতাভিত্তিক সহিংসতার শাস্তি থেকে সহিংসতাকারীর যে রেহাই তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী একটি গানের শিরোনাম। চিলেতে শুরু হওয়া এই গানটি একটি বৈশ্বিক ফ্লাশ মব হয়ে উঠেছে। মানুষকে নামিয়েছে পথে, তুলেছে অনুরণন।

সান্তিয়াগো দে চিলের সুপ্রীম কোর্টের বাইরে নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা দূরীকরণে এক আন্তর্জাতিক দিবসে শুরু হয় এটি। একদল নারীবাদী নারী ফ্ল্যাশ মব করার জন্য সমবেত হয়েছিলেন। তাদের এই শক্তিশালী কণ্ঠস্বরে অসমতার বিরুদ্ধে লড়াই যুক্ত করে চিলের রাস্তায় কয়েক সপ্তাহ ধরে চলে আন্দোলন।

তীব্র স্বরে একাকার হয়ে শত শত নারী একটি মর্মস্পর্শী সঙ্গীত গেয়ে ওঠেন পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে, এর ধারবাহিক ইমপিউনিটির বিরুদ্ধে। চিলেতে যেখানে প্রতিদিন (প্রত্যেক ঘণ্টায় প্রায় ২টি ঘটনা) ৪২ টি যৌন নির্যাতনের ঘটনা রিপোর্ট করা হয় সেখান দোষী সাব্যস্ত করা হয় মাত্র ৮ শতাংশের।

বিচারক পুরুষতন্ত্র: তুমি ধর্ষক

গানটি- “উন বিয়োলাদর এন তু কামিনো, এল বিয়োলাদর এরেস তু” বা “তোমার পথে ধর্ষক, ধর্ষক তুমি”- নারী অধিকার এবং নারীকে রক্ষায় প্রচলিত বিচার ব্যবস্থার ব্যর্থতার নিন্দা করে, সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে সহিংসতার সংস্কৃতির বিরুদ্ধে সচেতনা তৈরি করে। বাস্তবে, এই সংস্কৃতি আরও পাকাপোক্ত হয়ে উঠছে, সহিংসতার কার্যকলাপ নরমাল বিষয়ে পরিণত করা হয়েছে, নারী অবমানিত হয়েও প্রতিবেদন করতে তাকে দোষ দেয়া হচ্ছে।

‘আমার কোন দোষ ছিল না- কোথায় ছিলাম- কি পরেছিলাম’।

তোমার পথে ধর্ষক: সহিংসতার বিরুদ্ধে বৈশ্বিক আন্দোলন

চিলের সাম্প্রতিক বিক্ষোভগুলোর টুঁটি চেপে ধরতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহিংসতার ব্যবহারকে নিন্দা করা হয়েছে। এমন হুমকিমূলক কৌশলের প্রতি নারীর প্রতিক্রিয়া একটি আন্দোলনের জন্ম দেয় যা দেশটির সীমানা অতিক্রম করে গেছে। এটি কেবল দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোতে নয়, সারাবিশ্বেই অনুরণিত হচ্ছে। কারণ নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা একটি বৈশ্বিক ইস্যু। জাতিসংঘের তথ্যমতে, সমস্ত বালিকা এবং নারী তাদের জীবনে কমপক্ষে একবার দৈহিক এবং যৌন সহিংসতার শিকার হন।

চিলেয়ান নারীবাদী আর্ট কালেক্টিভ লাস তেসিস দ্বারা লিখিত গানটি ভাইরাল হয়ে যায়। এর সমসুর সারা দুনিয়া অনুরণিত হচ্ছে: ‘তুমি ধর্ষক”। তুমি, পুলিশ; তুমি, বিচারক; তুমি, রাষ্ট্র; তুমি, প্রেসিডেন্ট; তুমি, সাধারণ ব্যক্তি।

কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে এই প্রতিবাদের শক্তিশালী বার্তা শহর থেকে শহরে পৌঁছে যায়। পৌঁছে যায় দক্ষিণ আমেরিকা থেকে ইউরোপ, এমনি ভারতেও: বোগোতা, লিমা, মেহিকো সিটি, নিউ ইয়র্ক, প্যারিস, বার্সেলোনা, বার্লিন, মিলান।

কোরিওগ্রাফি, গান, নাচ দর্শনীয়। নারীরা চোখে কালো কাপড় বেঁধে পাশাপাশি। ড্রামের কম্পন আগলে রাখছে সম-সুরধারা। অঙ্গভঙ্গি এলোমেলো নয়, বিভিন্ন সময়ে ডান এবং বাম হাত উর্দ্ধে তুলে ধরছে কিংবা মাথার পেছনে রাখছে যেন আন্ডার অ্যারেস্ট।

ফ্ল্যাশ মব বিশ্বের যে কোন জায়গায় আয়োজন করা যায়। বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে লিরিকস এবং আন্দোলন ভাগাভাগি করা যায়। পরিবর্তনের জন্য একটি বৈশ্বিক প্রতিধ্বনি।

এই গানের একটি বাংলা অনুবাদ ইতোমধ্যে সোসাল মিডিয়ায় এসেছে। বাংলা’র পাঠকদের জন্য গানটি দেয়া হলো-

“তোর চোখে জন্মই আমার পাপ
জুলুম তোর এতোই প্রবল
বেঁচে থাকাটাই অভিশাপ

পুরুষতন্ত্র এমন এক মোড়ল
তোর চোখে জন্মই আমার পাপ
জুলুম তোর এতোই প্রবল
বেঁচে থাকাটাই অভিশাপ

কখনো তুই বলিস তুই পিঁপড়া আমি চিনি
কখনো তুই বলিস খানকি মাগি হিজাব কই?
কখনো তুই বলিস সন্ধ্যার পরে বাইরে কি?
সবশেষে তুই বলিস আমি নারী,
সব দায় আমারই।

এই দায় আমার নয়, নয় চলন-বলন-জামার
এই দায় আমার নয়, নয় চলন-বলন-জামার
এই দায় আমার নয়, নয় চলন-বলন-জামার
এই দায় আমার নয়, নয় চলন-বলন-জামার

এর দায় শুধু তোর, তুই ধর্ষক
এর দায় শুধু তোর, তুই ধর্ষক'

এর দায় শুধু তোর, তুই মোড়ল
এর দায় শুধু তোর, তুই পুলিশ
এর দায় শুধু তোর, তুই রাষ্ট্র
এর দায় শুধু তোর, তুই সরকার

জালিম তুই মোড়ল, তুই ধর্ষক
জালিম তুই পুলিশ, তুই ধর্ষক
জালিম তুই রাষ্ট্র, তুই ধর্ষক
জালিম তুই সরকার, তুই ধর্ষক

এর দায় শুধু তোর, তুই ধর্ষক”

(সহিংসতার বিরুদ্ধে কামিয়া সোলদাতির এই লেখাটি প্রকাশিত হয় ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে। লাইফ গেট থেকে অনুবাদ করেছেন নুরে আলম দুর্জয়।)

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0787 seconds.