• বিদেশ ডেস্ক
  • ১৭ জানুয়ারি ২০২০ ২১:৪০:৩৩
  • ১৭ জানুয়ারি ২০২০ ২১:৪১:২৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের ১১ সেনা আহত

ছবি : সংগৃহীত

ইরাকে অবস্থিত মার্কিন সেনাঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কমপক্ষে ১১ জন মার্কিন সেনা আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী।  বৃহস্পতিবার(১৬ জানুয়ারি) সামরিক বাহিনী এক বিবৃতিতে এই তথ্য প্রকাশ করে।  অথচ ইরানি হামলার পরে আমেরিকার কোন সেনাই আহত অথবা নিহত হয়নি বলে জানিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।   

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় কমান্ডের মুখপাত্র ক্যাপ্টেন বিল উর্বান এক বিবৃতিতে জানান, ৮ জানুয়ারি ইরাকের আল আসাদ বিমান ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের কোন সেনা নিহত না হলেও বেশ কয়েকজনকে কনকুশন সিম্পটমের জন্য চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।  প্রসঙ্গত, কনকুশন সিম্পটম হচ্ছে মস্তিষ্কের আঘাতজনিত সমস্যা।

ক্যাপ্টেন উর্বান জানান, আহত সেনাদের জার্মানি এবং কুয়েতে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়েছে।   

উল্লেখ্য, ৩ জানুয়ারি ইরাকের বাগদাদে ইরানি জেনারেল কাসেম সোলেইমানির গাড়িবহরে বিমান হামলা করে যুক্তরাষ্ট্র। ফলে ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন।  তার মৃত্যুর চরম প্রতিশোধ নেয়ার ঘোষণা দেয় ইরান।

পরবর্তীকালে ৮ জানুয়ারি সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধ নেয়ার লক্ষ্যে ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করে ইরান। ইরানের মাটি থেকে মার্কিন ঘাঁটি লক্ষ্য করে এটাই ছিল প্রথম হামলা।  এতদিন পর্যন্ত এই হামলায় কোন হতাহতের কথা অস্বীকার করা হলেও এবার যুক্তরাষ্ট্র স্বীকার করতে বাধ্য হলো এই হামলায় অন্তত ১১ জন মার্কিন সেনা মস্তিষ্কে আঘাতজনিত সমস্যায় ভুগছে।  

অবশ্য সোলেইমানিকে হত্যার পরে অনেকেই ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধের আশংকা করছিলেন। কিন্তু ইরানি হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের কোন সেনা নিহত না হওয়ায় এই যাত্রা বড় কোন সংঘাতের কবল থেকে মুক্তি পেয়েছে মধ্যপ্রাচ্য। অবশ্য অদূর ভবিষ্যতে কি হবে সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না।

তবে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পরের দিন অর্থাৎ ৯ জানুয়ারি ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্র উভয়েই জানিয়েছিল,তারা সরাসরি সংঘাতে যেতে আগ্রহী নয়।  

বাংলা/এফকে

 

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0271 seconds.