• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৩:২৪:৩৮
  • ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৩:২৪:৩৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

সংঘাতকবলিত দিল্লিতে ৩৪ জনের প্রাণহানি

ছবি : সংগৃহীত

টানা পাঁচ দিন ধরে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে চলছে সংঘর্ষ। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরোধী ও সমর্থকদের রক্তক্ষয়ী এ সংঘর্ষে আজ ২৭ ফেব্রুয়ারি, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪ জনে দাঁড়িয়েছে। 

বুধবার গভীর রাতে উত্তর-পূর্ব দিল্লির ভজনপুর, মৌজপুর কারায়াল নগরে নতুন করে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে নতুন করে আরো ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। কারফিউ জারির মধ্যে সংঘর্ষে তারা প্রাণ হারান। এছাড়া সংঘর্ষে দুই শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

সিএএবিরোধী বিক্ষোভ নিয়ে দিল্লিতে বিজেপি নেতারা মুসলিমবিদ্বেষী বক্তব্য বিদেয় আসছিলেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথসহ বহু নেতাই উস্কানিমূলক বক্তব্য দেন।

গত রবিবার দিল্লির বিজেপি নেতা কপিল মিশ্র উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়ার পরপরই বেশ কয়েকটি এলাকায় নজিরবিহীন সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। বুধবার পর্যন্ত এই সহিংসতায় নিহত হয় ২৭ জন।

এদিকে সংঘর্ষে নিহতদের পরিবারকে ২ লাখ টাকা এবং আহতদের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভারত সরকার।

গত দুইদিনের সংঘর্ষের পর আজ তুলনামূলকভাবে শান্ত দিল্লি। তবে রাজ্যটির জাফরাবাদ, মৌজপুর, চাঁদবাগ ও কারাবাল নগরে কারফিউ জারি রয়েছে। 

দিল্লির ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক অতুল গর্গ জানিয়েছেন, সহিংসতাকবলিত এলাকা থেকে বুধবার রাত ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল আটটা পর্যন্ত ১৯টি কল পেয়েছেন তারা। এসব কলে সাড়া দিতে শতাধিক কর্মী মোতায়েন করেছে ফায়ার সার্ভিস।

এদিকে, সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার পেছনে চার বিজেপি নেতার বিদ্বেষমূলক বক্তব্যকে সন্দেহ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছিলেন মুরালিধর নামের দিল্লি হাইকোর্টের একজন বিচারপতি। গতকাল রাতেই তাকে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে বদলি করেছেন দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ।

এদিকে মুরালিধরকে বদলির সিদ্ধান্তকে লজ্জাজনক আখ্যা দিয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াংকা গান্ধী। তিনি এমন সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দাও জানিয়েছেন।

বাংলা/এসএ

 

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0683 seconds.