• ফিচার ডেস্ক
  • ০১ মার্চ ২০২০ ১৯:৫৭:২৩
  • ০১ মার্চ ২০২০ ১৯:৫৭:২৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বরের বাড়িতে নয়, বিয়ের তত্ত্ব গেলো অনাথ আশ্রমে

ছবি : সংগৃহীত

বিয়েতে কনের বাড়ি থেকে তত্ত্ব বরের বাড়িতে যাবে এমটাই নিয়ম। কিন্তু সেটা না হয়ে ব্যতিক্রম ঘটলো ভারতের উত্তর কোলকাতায়। তত্ত্ব পাঠানো হলো অনাথ আশ্রমের ভাইদের কাছে। কনের নিজের পছন্দ করা বাসন কোসন, শার্ট, প্যান্ট, পাঞ্জাবি গেল অনাথ ভাইদের হতে। নিজ বিয়েতে এমন মহৎ কাজ করে আলোচনায় কনে রায়া।

উপহার ছিলো তার ১৭০ জন অনাথ ভাইদের জন্য। আর বিয়ের কার্ডে লেখা ছিলো ‘বাগবাজার নিবাসী রায়ার সহিত অনীশ-এর শুভবিবাহ।’ এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতের সংবাদমাধ্যম কোলকাতা টুয়েন্টিফোর।

বর অনীশ পেশায় ওষুধ সরবরাহকারী ব্যবসায়ী। রায়ার সঙ্গে বছর তিনেকের আলাপ। প্রেম পরিণতি পাওয়ার দিনে হবু অর্ধাঙ্গিনীর এমন ইচ্ছায় একমত পোষন করেন তিনিও।

এ বিষয়ে নববধূ রায়া জানান, ‘একদিন কলেজ থেকে ফেরবার সময় একটি বল আমার গায়ে এসে পড়ে, মৃদুস্বরে ভেসে আসে আমার কানে ‘দিদি বলটা এনে দেবেন, তাকাতেই দেখি অসহায় চেহারাগুলো। রাস্তায় আসা বলটিকে কুড়িয়ে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি তাদের নেই। আমি নিজেই ভিতরে যাই বল ফেরত দেয়ার জন্য। ঘুরে দেখি অনাথ আশ্রম। মনে দাগ কাটে। তারপর থেকেই আমার নিয়মিত যাতায়াত অনাথ ভাইদের কাছে। ভাইফোঁটা দিতে রাখি বাঁধতেও গিয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সেদিন থেকেই ইচ্ছা ছিল অনাথ ভাইদের জন্য কিছু করবার। ইচ্ছা থাকলেও হয়ে ওঠেনি।’

বিয়েতে বাবা একমাত্র মেয়েকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন কি নেবে? রায়া চাওয়া ছিল অনাথ ভাইদের জন্য। তিনি বাবাকে জানান, বরের বাড়িতে তত্ত্ব না পাঠিয়ে তা অনাথ আশ্রমে পাঠাবো। বল দিতে গিয়ে রায়া দেখেছিল তাদের বাসন-কোসনের অবস্থা।

এমনকি বিয়েতে আত্মীয়-স্বজনদের উপহারের বদলে নগদ অর্থ দিতে বলেছেন রায়া। সেই টাকার তিনি তুলে দেবে ভাই গুলোর পড়াশুনার জন্য। বিয়ের দিন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ওই ১৭০ জন উপস্থিত ছিলো। রায়া দেখালেন, এভাবেও বিয়ে করা যায়।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0721 seconds.