• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০২ মার্চ ২০২০ ১৯:৩৫:১৩
  • ০২ মার্চ ২০২০ ১৯:৩৫:১৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আইএলএফএসএল থেকে ইব্রাহিম খালেদের পদত্যাগ

খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। ছবি : সংগৃহীত

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের (আইএলএফএসএল) পরিচালক ও চেয়্যারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। ২ মার্চ, সোমবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন তিনি। আদালতের নির্দেশেই তিনি ওই প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব নিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে ইব্রাহিম খালেদ জানান, উচ্চ আদালতের নির্দেশে আইএলএফএসএল’র চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। প্রতিষ্ঠানটি যে পরিমাণ ঋণ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিদর্শনে এসব ঋণ ফেরত আসার কোনো সম্ভাবনা নেই। এমনকি ঋণের অর্ধেকও ফেরত আসার সম্ভাবনা নেই। প্রতিষ্ঠানটিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্ত রয়েছে। এখান থেকে টেনে তোলা সম্ভব নয় বলেই পদত্যাগ করেন তিনি।

তিনি আরো জানান, ঋণ আদায় করার জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনকে উদ্যোগ নিতে হবে। শারীরিক অবস্থা ভালো না থাকা সত্ত্বেও টাকা ফেরত নিতে আসা গ্রাহকদের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এ সকল কারণে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেন। ইতোমধ্যে আইএলএফএসএল’র পরিচালনা পর্ষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক ও উচ্চ আদালতে পদত্যাগের কাগজ পাঠানো হয়েছে।

এ বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি আইএলএফএসএল’র চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ নিয়োগপ্রাপ্ত হন এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের নির্দেশে প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক অবস্থা তুলে ধরে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন তিনি।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, এই প্রতিষ্ঠান থেকে পিকে হালদারসহ কতিপয় ব্যক্তি ১ হাজার ৫৯৬ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে। এ তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হলেও এটি খতিয়ে দেখার কোনো অনুমতি দেয়া হয়নি। এই টাকা উদ্ধারে রিকভারি এজেন্ট নিয়োগ দেয়ার কথা আদালতকে জানান তিনি। রিকভারি এজেন্ট দিয়ে টাকা উদ্ধার করার অভিজ্ঞতা তার রয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত আইএলএফএসএল’র মোট সম্পদের পরিমাণ ছিলো ৪ হাজার ৬০৯ কোটি। এর মধ্যে ৩ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা ঋণ ও লিজ হিসেবে গ্রাহকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। এরপর গত কয়েক বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটির আমানতকারীরা তাদের জমাকৃত অর্থ তুলতে পারছে না।

বাংলা/এনএস

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0736 seconds.