• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২১ মার্চ ২০২০ ২১:২৩:৪৯
  • ২১ মার্চ ২০২০ ২১:২৩:৪৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

যবিপ্রবি বি.এম.ই ক্লাব তৈরি করলো হ্যান্ড স্যানিটাইজার

ছবি : সংগৃহীত

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সঙ্কট তৈরি হয়। অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ পেয়ে মূল্যবান এই জিনিসটির দাম বাড়িয়ে দেন। যদিও এর বিকল্প অনেক কিছু ব্যবহার করে হাত জীবাণুমুক্ত করা যায়, কিন্তু জনমনে বিষয়টি নিয়ে আতঙ্ক কমেনি।

প্রাণঘাতি কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং ক্লাবের একদল শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে  হ্যান্ড স্যানিটাইজার  তৈরি করা হয়। উক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার আজ শনিবার (২১ মার্চ ) বিকাল থেকে বি.এম.ই ক্লাবের সদস্যদের সহযোগীতায় জনগণের মাঝে বিতরন করা হয়।বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ যবিপ্রবির নতুন একটা বিভাগ উক্ত বিভাগের ক্লাবের সকল সদস্যেদের একমাত্র নিজিস্ব অর্থায়নেই তৈরি করা হয় এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার।যার মাধ্যমে সম্পূর্ণ  হলো   বি.এম.ই ক্লাবের প্রথম প্রজেক্টের কাজ।

ইতিমধ্যে  করোনা প্রতিরোধে বিভিন্ন স্থানে বিলবোর্ড স্থাপন, গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রচারপত্র বিলি, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনের প্রবেশমুখে জীবাণুনাশক রাখাসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যবিপ্রবি)।

জনসচেতনতা বাড়াতে যবিপ্রবি কর্তৃক গঠিত ‘করোনা ভাইরাস বিষয়ে সচেতনতা, সতর্কতা ও প্রতিরোধ কমিটি’বিলবোর্ড স্থাপন করেন। বিলবোর্ডে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস কিভাবে ছড়ায়, এর লক্ষণসমূহ, কাদের ঝুঁকি বেশি, প্রতিরোধে কী কী করণীয়, আক্রান্ত হলে কি করণীয় এবং সরকার ঘোষিত হটলাইন নম্বরও সংযোজন করা হয়েছে।

এছাড়াও  যবিপ্রবির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট, প্রবেশপথ ও লিফটের সামনে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে প্রচারপত্র সাঁটানো হয়েছে। এর আগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের তত্ত্বাবধানে বিভিন্ন ভবনের প্রবেশপথে জীবাণুনাশক সরবরাহ করা হয়েছে এবং অব্যাহত আছে। অফিসে প্রবেশ এবং বের হওয়ার সময় সবাইকে জীবাণুনাশক ব্যবহারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

উক্ত কাজে ল্যাব প্রদানের মাধ্যমে  সহযোগীতা করেন বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হাসান মোহাম্মদ আল ইমরান।

এছাড়াও হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন উক্ত ক্লাবের সভাপতি মোঃ হোজ্জাতুল ইসলাম সাইদ এবং সাধারন সম্পাদক মোঃ সাজিদ হাসান সহ ক্লাবের অন্যান্য সদস্য।

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0230 seconds.