• বাংলা ডেস্ক
  • ২৪ মার্চ ২০২০ ১৭:৫৪:২৮
  • ২৪ মার্চ ২০২০ ১৭:৫৪:২৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

পাপিয়া কাণ্ডের সঙ্গী ‘ওয়েস্টিন কর্মীরাও’

ফাইল ছবি

যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামিমা নূর পাপিয়া এবং তার স্বামী গুলশানের অভিজাত যে হোটেলে থেকে দিনের দিন পর অবৈধ কাজ করেছেন, সেইসব কাজের সঙ্গে ছিলেন ওয়েস্টিনের কর্মীরা। হোটেলটির ২৬টি কক্ষকে অবৈধ কারবারে বিভিন্ন সময় পাপিয়া ও তার স্বামী ব্যবহার করতেন।

সিআইডির তদন্তে উঠে এসেছে এসব তথ্য। আর এ কাজে তাদেরকে সহায়তা করতেন হোটেলটির বার ম্যানেজার মো. বশির।

শনিবার সিআইডির পক্ষ থেকে পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরীর (মতি সুমন) বিরুদ্ধে দায়ের করা প্রথম নতুন একটি মামলায় এসব অভিযোগ করা হয়েছে।

গুলশান থানায় মুদ্রা পাচার প্রতিরোধ আইনে সিআইডির পরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামানের দায়ের করা মামলায় পাপিয়া ও সুমন ছাড়াও আসামি করা হয়েছে আরো চারজনকে।

অন্য আসামিরা হলেন- পাপিয়া-সুমনের সহযোগী সাব্বির খন্দকার, শেখ তায়্যিবা নূর, তেজগাঁও এফডিসি গেটসংলগ্ন কার একচেঞ্জের অন্যতম মালিক যুবায়ের আলম এবং হোটেল ওয়েস্টিনের বারের ম্যানেজার মো. বশির।

এদের মধ্যে যুবায়ের দেশের বাইরে রয়েছেন আর বশির পলাতক। আর সাব্বির ও তায়্যিবা আগেই পাপিয়া-সুমেনর সঙ্গে গ্রেপ্তার হয়েছেন।

ঢাকার বিমানবন্দর এলাকা থেকে গত ২২ ফেব্রুয়ারি পাপিয়া, তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী (মতি সুমন) এবং তাদের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার হন।

শনিবার সিআইডির করা মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা সিকিউরিটি সার্ভিস নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক টোকন মিয়া, তার দুই সহযোগী স্বপন মিয়া এবং আইয়ুব আলীকে নরসিংদীতে আটকে রেখে মেয়েদের সাথে আপত্তিকর ছবি তোলা হয়।

পরে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে পাপিয়া তার বাবার ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে দুই লাখ ৬০ হাজার এবং নগদ ২০ হাজার টাকা আদায় করেন।

এছাড়া একই বছর ১২ অক্টোবর থেকে ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বিভিন্ন সময়ে ওয়েস্টিনের ২২০১ কক্ষে মাদক কেনাবেচা, চাঁদাবাজি, প্রতারণা এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে কাছ থেকে পাঁচ কোটি নয় লাখ ৭৭ হাজার টাকা আদায় করেন পাপিয়ারা।

সেই টাকারই একটি বড় অংশ কার একচেঞ্জ, নরসিংদীতে কেএমসি এন্টারপ্রাইজ এবং কেএমসি কার ওয়াশ অটো সলিউশিনে বিনিয়োগ করেন তারা।

এছাড়া পাপিয়া ও তার সহযোগীরা ওয়েস্টিনের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সহায়তায় হোটেলের ২৬টি কক্ষ অবৈধ কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করতেন বলেও মামলায় উল্লেখ করেছেন বাদী।

মামলায় বলা হয়, আসামি সাব্বির ও তায়্যিবা প্রতারণা, হুমকি, ভয়ভীতি দেখানো, ওয়েস্টিনের কর্মকর্তা বার ম্যনেজার বশির হোটেল কক্ষে ব্যবসায়ীদের আপত্তিকর ছবি তুলে তা সংরক্ষণ করে অর্থ আদায়ে পাপিয়া এবং তার স্বামীকে সহায়তা করতেন।

পাপিয়া এভাবে অবৈধভাবে উপার্জিত আয়ের তিন কোটি ২৩ লাখ ২৪ হাজার টাকা ওয়েস্টিনে বিল এবং ইন্দিরা রোডের বাসা ভাড়া বাবদ ছয় লাখ টাকা পরিশোধ করেছেন। এছাড়া প্রায় ৬০ লাখ টাকা নিজের কাছে রাখেন, যা ইতিমধ্যে জব্দ করা হয়েছে বলে মামলায় বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

শামিমা নূর পাপিয়া

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.1077 seconds.