• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৫ মার্চ ২০২০ ১০:০৯:২৯
  • ২৫ মার্চ ২০২০ ১০:০৯:২৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আজ মুক্তি পাচ্ছেন খালেদা জিয়া!

বেগম খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

শর্ত সাপেক্ষে মুক্তি পাচ্ছেন দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার বয়স ও মানবিক কারণ বিবেচনা করে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২৫ মার্চ, বুধবার মুক্তি পেতে পারেন খালেদা জিয়া। কিছু প্রক্রিয়া বাকি থাকায় গত মঙ্গলবার রাতে মুক্তি পাননি তিনি

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছিলেন, সব প্রক্রিয়া শেষ হলেই তিনি মুক্তি পাবেন। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহীদুজ্জামান জানান, বুধবার দুপুরের মধ্যেই খালেদা জিয়ার মুক্তির আইনি প্রক্রিয়াগুলো শেষ হবে।  

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘তার বাসায় থেকে চিকিৎসা করার সুযোগ দেয়ার কথা বিবেচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। এখন পর্যন্ত সেই ফরমাল সিগনেচারটির অপেক্ষায় রয়েছি আমরা। এখানে ডকুমেন্টেশনের ব্যাপার রয়েছে, এখানে গভর্নমেন্ট অর্ডারের ব্যাপার রয়েছে। এই সবগুলোই হবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষর করার পরে।’

খালেদা জিয়ার সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে তাকে দুই শর্তে মুক্তি দেয়া হচ্ছে। ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১’র উপধারা ১ ধারা অনুযায়ী বয়সের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে মানবিক কারণে সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। এ সময় খালেদা জিয়া ঢাকায় তার নিজ বাসায় থেকে চিকিৎসা নিবেন এবং বিদেশ যেতে পারবেন না- এই দুই শর্তে তাকে মুক্তি দিচ্ছে সরকার।

এর আগে ২৪ মার্চ, মঙ্গলবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, শর্তসাপেক্ষে দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি এবং খালেদা জিয়ার বয়স বিবেচনায় মানবিক কারণে সরকার এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যেই মতামত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত সেখান থেকে নেয়া হবে। সরকারের এ সিদ্ধান্তের তথ্য তুলে ধরেন। দণ্ড স্থগিতের প্রস্তাব বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

খালেদা জিয়া কখন মুক্তি পাচ্ছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু বলেন, আইন মন্ত্রণালয় থেকে তার মুক্তিসংক্রান্ত নির্দেশনা তারা পেয়েছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এখন আইন দেখে কাগজপত্র তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠাবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অনুমোদনের পর সেটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ফিরে আসবে। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কারাগারে কাগজপত্র পাঠাবে। এরপর কারা কর্তৃপক্ষ খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যবস্থা নেবে।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহীদুজ্জামান বলেন, ‘আশা করি আগামীকাল (আজ বুধবার) দুপুরের মধ্যেই খালেদা জিয়ার মুক্তির আইনি প্রক্রিয়াগুলো শেষ হবে।’

এদিকে খালেদা জিয়ার বোন সেলিনা ইসলাম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ওনাকে বলেছি, ওনাকে (খালেদা জিয়া) উন্নত চিকিৎসার জন্য বাইরে নিয়ে যেতে চাই। তার দুহাত বেঁকে গেছে, দাঁড়াতে পারেন না, হাঁটতে পারেন না। বুকে-পিঠে ব্যথা। শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। ডায়বেটিকসও নিয়ন্ত্রণে নেই। তিনি এখন মৃত্যুশয্যায়। তাকে মুক্তি দিন। এর পরিপ্রেক্ষিতে উনি (প্রধানমন্ত্রী) এ কাজ করেছেন। এজন্য অনেক ধন্যবাদ।’

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় কারাবন্দী খালেদা জিয়া। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তাকে ১৭ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। তাকে প্রথমে পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে বিশেষ কারাগার স্থাপন করে সেখানে রাখা হয়। সেখানে অবস্থানকালে অসুস্থ হন খালেদা জিয়া। এরপর গত বছরের এপ্রিলে তাকে চিকিৎসার জন্য বিএসএমএমইউতে পাঠানো হয়। বর্তমানে তিনি এখানেই চিকিৎসাধীন।

বাংলা/এনএস

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0809 seconds.