• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ৩১ মার্চ ২০২০ ২৩:৪৮:৪৩
  • ৩১ মার্চ ২০২০ ২৩:৪৮:৪৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মুখ দেখে ত্রাণ দিচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরা

ছবি : সংগৃহীত

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের মহামারি ঠেকাতে এক প্রকার অঘোষিত লকডাউন জারি করেছে সরকার। এতে চরম বিপত্তিতে পড়েছে দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো। অনেকেই তিন বেলার পরিবতর্তে দুই বা এক বেলা আহার করছেন। এমতাবস্থায় মুখ দেখে দেখে ত্রাণের খাদ্যসামগ্রী দেয়ার অভিযোগ উঠেছে খুলনার জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে।

এমনকি জনপ্রতিনিধিরা সরকারি যে সব ত্রাণ বিতরণ করছেন তা মধ্যবিত্তদের কাছে পৌঁছাচ্ছে না। দলীয় লোক না হলে খুলনা সিটি করপোরেশনের ত্রাণ সামগ্রী মিলছে না বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি খুলনা সিটি কর্পোরেশনও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে খাদ্যসামগ্রী বিতরণের কাজ শুরু করে। তবে যারা জনপ্রতিনিধির কাছের লোক, তারাই নামের তালিকা দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এসব ত্রাণ। এছাড়াও দলীয় লোক না হলে ভাগ্যে জুটছে না সিটি করপোরেশনের ত্রাণ।

এদিকে একাধিক জনপ্রতিনিধি জানায়, তারা কোনো বাছ-বিচার না করেই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। এখন সময় অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর। যারা মুখ চিনে বিতরণ করছেন, তারা ভালো করছেন না।

এ বিষয়ে ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ সামছুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘আমাদের দলীয় সিদ্ধান্ত হলো কোনো অসহায় মানুষ না খেয়ে থাকবে না। মুখ চিনে কাউকে ত্রাণ সামগ্রী দিতে নিষেধ করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও অনেকেই এ ধরনের কাজ করছে বলে আমরা শুনেছি। তাদেরকে সতর্ক করা হচ্ছে।’

এর বাইরে খুলনা নগরীর অনেক এলাকায় ব্যক্তি উদ্যোগসহ বিভন্ন সংগঠন, সংস্থা খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন। এছাড়া ব্লিচিং দিয়ে এলাকা জীবানুমুক্ত করার কাজ চলছেন তারা। এসব কাজে এলাকাবাসীরাও বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন।

প্রসঙ্গত, করোনাভারাসের প্রকোপ রোধে গত ২৬ মার্চ থেকে বাস, ট্রেনসহ সকল গণপরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ হয় সরকারি-বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠান। সীমিত আকারে রিকশা, ইজিবাইক চলাচল করলেও, বন্ধ চায়ের দোকানসহ অন্যান্য দোকানপাট। এই পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষদের জন্য ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের নির্দেশ দেয় সরকার।  

বাংলা/এনএস

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0747 seconds.