• ফিচার ডেস্ক
  • ২৩ এপ্রিল ২০২০ ১৪:৪৯:৫৭
  • ২৩ এপ্রিল ২০২০ ১৪:৪৯:৫৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

করোনার নতুন সংস্করণ গ্যাস্ট্রো-করোনা, জানুন লক্ষণ

ছবি : সংগৃহীত

বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে দেখ দিয়েছে ভাইরাসটির নতুন সংস্করণ গ্যাস্ট্রো-করোনা। এর মধ্যেই বেশ কয়েকজন এই গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে গ্যাস্ট্রো-করোনার সংক্রমণ এতটাই সীমিত যে তাকে নিয়ে খুব বেশি চর্চা নেই। এতে করে আমাদের কাছে অজানাই থেকে গিয়েছে এই নতুন রোগটি।

বিজ্ঞানীরা জানান, এটি আলাদা কিছু নয়, কোভিড-১৯ এরই দ্বিতীয় সংস্করণ। তাই উপেক্ষা না-করে, গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাসের লক্ষণ জেনে রাখা একান্ত জরুরি। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতের সংবাদমাধ্যম এই সময়।

গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাস, নামের সঙ্গেই পেটের যে একটা সম্পর্ক আছে তা বোঝা যায়। সাধারণত কোভিড-১৯’এ জ্বর-সর্দি-কাশির মতো উপসর্গ দেখা যায়। আক্রমণের লক্ষ্য শ্বাসনালী। প্রথম দিকে সাধারণ সর্দি-কাশির সঙ্গে অনেকে গুলিয়ে ফেলেন। অথবা করোনা পজিটিভ হওয়া সত্ত্বেও কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না, এমনটাও ঘটছে।

কিন্তু, গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাস আক্রমণ করছে পেটে। পেট থেকে থেকে মোচড় দেয়া, এমনকি ডায়েরিয়াও গ্যাস্ট্রো-করোনা অন্যতম লক্ষণ। কম লক্ষণযুক্ত পেটে উদ্ভূত এই গ্যাস্ট্রো-করোনা এখন চিকিৎ‌সকদের চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাধারণ করোনার উপসর্গের সঙ্গে মিল না-থাকাতেই সমস্যাটা আরো বেড়ে গেছে। অনেক সময় চিকিৎসকরাও বুঝে উঠতে পারছেন না। তবে, করোনাভাইরাসের সঙ্গে এর লক্ষণের অনেকটা মিল পাওয়া যায়।

তাই আমাদের জানতে হবে গ্যাস্ট্রো-করোনাভাইরাস কি? এর উপসর্গগুলোই বা কি কি?

বিশেষজ্ঞরা জানান, এই ভাইরাস প্রথমে কোনো ব্যক্তির শ্বাসযন্ত্রে আক্রমণ করার পরিবর্তে পেটে আক্রমণ করে। কাশির সাধারণ উপসর্গ দেখা যায় না। এককথায়, ফুসফুসের নীচের অংশে নিউমোনিয়ার একটি সংস্করণ। সে কারণে পেটে ব্যথা হয়।

চিকিত্‍ৎসকরা জানান, যদি কোনো ব্যক্তির পেটে ব্যথা অনুভব হয় বা ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হয় তবে, এটি গ্যাস্ট্রো কভিড -১৯ এর প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে। পেটে শক্ত কিছু অনুভূত হতে পারে, পেট ব্যথা বা পেটের নিচের অংশে নিস্তেজ ব্যথা হতে পারে। এগুলো প্রাথমিক লক্ষণ। এর পর কাশি ও জ্বরের মতো সাধারণ উপসর্গগুলো আসবে। এই লক্ষণগুলো পেটের অন্য অসুখ থেকেও হতে পারে। তাই গ্যাস্ট্রো-করোনায় আক্রান্ত কি না, সেটা বুঝতে পর্যবেক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ।

প্রথম দিকে পেটব্যথা ও ডায়েরিয়া। এরপর ক্রমেই অবিরাম কাশি ও উচ্চ তাপমাত্রা জ্বর আসবে। ফলে পেটেব্যথা বা পেটখারাপের সঙ্গে জ্বর-কাশি থাকলে, ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। গ্যাস্ট্রো-ভাইরাসকে ‘নোরোভাইরাস’ও বলা হচ্ছে।

বাংলা/এনএস

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.1067 seconds.