• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৬ এপ্রিল ২০২০ ১৮:১৫:২৯
  • ২৬ এপ্রিল ২০২০ ১৮:১৫:২৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আহা! স্পেনে কী আনন্দ আকাশে বাতাসে

ছবি : সংগৃহীত

মুক্ত জীবনের যে অনুভূতি তা প্রকৃতপ্রস্তাবে ভাষাহীন, অব্যক্ত অপার্থিব। আর সেই মুক্ত জীবনের স্বাদ পেলো স্পেনের শিশুরা দীর্ঘ ৬ সপ্তাহ পরে। আজ থেকে চলমান লকডাউন শিথিল করে সকাল ৯ টা থেকে রাত ৯ টার মধ্যে ১ ঘণ্টার জন্য তারা বড়দের সাথে বাসার বাইরে বের হতে পারবে। শ্বাস নিতে পারবে মুক্ত বাতাসে। তবে স্কুলগুলো এখনও বন্ধ রয়েছে।

রয়টার্স’এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এমন ঘোষণা দেয়ার পরে পায়ে হেঁটে, স্কেটবোর্ডে এবং স্কুটারগুলোতে করে স্পেনের বাচ্চারা রবিবার প্রথমবারের মতো তাদের বাড়ি থেকে বের হয়ে এসেছিলো।

তবে প্রত্যেকেই প্রতিরক্ষামূলক মাস্ক পরা ছিলো। ১৪ বছরের কম বয়সীদের স্প্যানিশ সরকার এ অনুমতি দিলো। ১৪ ই মার্চ সে দেশের সরকার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল এবং তারপর থেকেই বেশিরভাগ কার্যক্রম বন্ধ ছিলো।

মায়ের সাথে বাইরে আসতে পেরে ৯ বছরের লুসিয়া ইবনেজ বলছিলো যে লকডাউনের সময় সে রাস্তায় চলাচল এবং পার্কে যাতায়াত মিস করেছে।

‘আমি কখনো ভাবিনি যে আমি স্কুল মিস করব। তবে আমি সত্যিই এটি মিস করেছি।’ এভাবেই সে তার কথা যুক্ত করে।

নিয়ম হচ্ছে, বাচ্চারা প্রতিদিন এক ঘণ্টার জন্য বাইরে বেরোতে পারবে এবং এ সময়ে তাদের বাড়ির এক কিলোমিটারের মধ্যে থাকতে হবে।

আর প্রাপ্তবয়স্করা একসাথে তিনটে বাচ্চা সাথে নিয়ে বেরোতে পারবেন। তবে তারা প্লেপার্ক ব্যবহার করার অনুমতি পাবেন না। এবং অন্যান্য ব্যক্তিদের থেকে কমপক্ষে দুই মিটার (সাড়ে ৬ ফুট) অবধি শারীরিক দূরত্ব মেনে চলার নির্দেশিকা পালন করতে হবে।

রবিবার স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, করোনাভাইরাস আক্রমণের পরে আজ আরো ২৮৮ জন মারা গেছে; যা গত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। শনিবারে মারা গেছেন ৩৭৮ জন এবং আগের দিন শুক্রবারে ৩৭৭ জন।

শনিবার রাতে একটি টেলিভিশনে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী সানচেজ বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ক্রমাগত কমতে থাকলে - ২ মে থেকে সবাই একা একা এক্সারসাইজ করার সুযোগ পাবেন এবং লকডাউন নিষেধাজ্ঞাগুলো আরো সহজ করা হবে। এছাড়া একত্রে বসবাসকারী পরিবারের লোকেরা একসাথে স্বল্প দূরত্বে হাঁটারও অনুমতি পাবেন।

তবে, লকডাউনের এ নিষেধাজ্ঞা এভাবে পর্যায়ক্রমে তোলা হবে।

স্পেনে মৃতের মোট সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩,১৯৯। আর মোট সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২,০৭,৬৩৪। গতকাল এ সংখ্যা ছিলো ২,০৫,৯০৫ জন। যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালির পরে স্পেনে COVID-১৯ এ তৃতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

স্পেন করোনাভাইরাস

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0883 seconds.