• বাংলা ডেস্ক
  • ২৮ এপ্রিল ২০২০ ১৪:২৪:০৯
  • ২৮ এপ্রিল ২০২০ ১৫:২২:০৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

করোনার নতুন ৬ অস্বাভাবিক লক্ষণ

ছবি : সংগৃহীত

সারাবিশ্বব্যাপী করোনার ভয়াল বিস্তার আমাদেরকে নানাবিধ প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। উন্নত ও অনুন্নত-সকল দেশই এখন করোনার ভয়াল বিস্তারের কারণে মহাবিপদে পড়ে গেছে। আর স্বাস্থ্যসেবা মহামারির এ সময়ে পুরোপুরি ঝু্ঁকির মধ্যে পড়ে গেছে। যদিও প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে এটাকে নিয়ন্ত্রণের উপায় বের করার জন্য।

সেই ধারাবাহিকতায় নানা সংস্থা ও সরকার তাদের গবেষণা ও করণীয় অব্যাহত রেখেছে। এরই মাঝে সিডিসি (Centre for Disease Control and Prevention, CDC) নতুন করে করোনা ভাইরাসের ৬ টি অস্বাভাবিক লক্ষণ প্রকাশ করেছে; যা টাইমস অব ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে। চলুন এক নজরে জেনে আসি অস্বাভাবিক সেই ৬টি লক্ষণ।

(১) স্বাদ ও গন্ধে অস্বাভাবিকতা :

ঠান্ডা, সর্দি কাশিতে আমাদের নাক বন্ধ হয়ে গেলে আমাদের গন্ধ পাওয়ার যে অনুভূতি সেটা কমে যেতে পারে। কিন্তু করোনা ভাইরাসে এ লক্ষণ দেখা দেয়া শুরু হলে, যুক্তরাজ্যে মার্চের শেষ দিক থেকে। রোগীরা স্বাদ ও গন্ধহীনতার লক্ষণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে থাকে। পরে দেখা যায় যে এসব রোগীরা করোনা পজিটিভ।

(২) তীব্র শীত শীত অনুভূতি :

স্বাভাবিকভাবে তো আমাদের শীতনুভূতি হতেই পারে। তবে যদি এটা তীব্র হয়, সেই সাথে কাঁপুনি থাকে তাহলে তা করোনার অস্বাভাবিক লক্ষণ হতে পারে।

(৩)  মাংসপেশীর ব্যথা :

মাংসপেশীতে ব্যথা করোনা ভাইরাসের অস্বাভাবিক  লক্ষণের একটা। ১৪.৮  শতাংশ ক্ষেত্রে এমন ঘটনা ঘটে থাকে। সাধারনত বয়স্কদের এটা বেশি হয়। মাংসপেশীতে ভাইরাসের আক্রমনের ফলে যে প্রদাহ হয় তার ফলেই এ ব্যথা হয়ে থাকে।

(৪) মাথাব্যথা :

সর্দির সাথে মাথাব্যথা খুবই কমন একটা বিষয়। এটা করোনারও লক্ষণ হতে পারে। তবে, প্রাপ্ত নতুন তথ্যানুসারে দেখা যাচ্ছে, সেক্ষেত্রে মাথাব্যথা তীব্র হবে। সাথে সার্বক্ষণিক কপালের দু'পাশে ও চোখের পাতায় ব্যথা বা চাপ ধরা অনুভূতি হতে পারে।

(৫) চোখ লাল হয়ে হওয়া :

করোনারোগীদের চোখ লাল হয়ে যেতে পারে। দেখে মনে হতে পারে "কনজাংটিভাইটিস"।একে বলা হচ্ছে "পিঙ্ক আই"।   আসলে কিন্তু  এটা কনজাংটিভাইটিস  নয়। বরং এটা করোনার অস্বাভাবিক লক্ষণ হিসেবে এখন দেখা যাচ্ছে।

(৬) গলাব্যথা :

করোনা ভাইরাসের একটা বড় লক্ষ্মণ হচ্ছে শুকনো কাশি। সেই সাথে দেখা গেছে প্রায় ৬০ ভাগ রোগীদের ক্ষেত্রেই গলাব্যথার ইতিবাচক ইতিহাস রয়েছে।

 

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0805 seconds.