• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৩ মে ২০২০ ১৮:২৩:৫৪
  • ০৩ মে ২০২০ ১৮:২৩:৫৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

সুপ্রিম কোর্টে ঝুলে আছে নেতানিয়াহু'র ভাগ্য

ছবি : সংগৃহীত

ইসরায়েলের সুপ্রিম কোর্টে দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে নতুন সরকার গঠনের অনুমতি দেয়া হবে কিনা তা নির্ধারণের জন্য রবিবার দু'দিনের শুনানি শুরু হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের রায় যদি নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যায় তাহলে এপ্রিল ২০১৯ সালের পরে চতুর্থ নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু হবে। যদিও দেশটি করোনাভাইরাস এবং অর্থনৈতিক সংকটে নিমজ্জিত।

এদিকে, নেতানিয়াহু এবং তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বেনি গ্যান্টজ (Benny Gantz) গত মাসে যৌথভাবে সরকার গঠনের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন। যদিও এর আগে হয়ে যাওয়া তিনটি নির্বাচনে কেউই আলাদাভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি।

এক দশকেরও বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা এবং বর্তমানে অন্তর্বতী সরকারের প্রধান হিসাবে ডানপন্থী নেতানিয়াহু এই চুক্তি অনুসারে মধ্যপন্থী গ্যান্টজের হাতে ক্ষমতা দেয়ার আগে আগামী ১৮ মাসের জন্য একটি নতুন প্রশাসনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন।

তবে বিরোধী দল এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানসহ বেশ কয়েকটি গোষ্ঠী এই চুক্তি বাতিল করতে এবং নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রজ্জু করে সরকারের নেতৃত্ব থেকে বিরত রাখার অভিপ্রায়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে আবেদন পেশ করেছে।

এমন আবেদনের প্রেক্ষিতে এ্যাটর্নি জেনারেল এভিচাই ম্যান্ডেলবিল্ট (Avichai Mandelblit) অবশ্য বলেছেন, নেতানিয়াহু কে এ কারণে সরিয়ে দেয়ার কোনো আইনগত ভিত্তি নেই।

এছাড়া সেদেশের আইনেও চূড়ান্তভাবে উচ্চ আদালতে কেউ দোষী প্রমাণিত না হলে তাকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

এদিকে রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরাও ধারণা করছেন যে ইসরায়েলের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকরাও নেতানিয়াহুর প্রতি পক্ষপাতিত্ব করবেন।

এ বছরের জানুয়ারিতে নেতানিয়াহু ঘুষ, প্রতারণা এবং বিশ্বাসভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন। যদিও তিনি তা অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন যে তিনি আসলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন।

এখন সবাই তাকিয়ে আছে সে দেশের সুপ্রিম কোর্টের দিকে। কারণ এ রায়ের উপরেই নির্ধারিত হবে নেতানিয়াহুর ভাগ্য।

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0744 seconds.