• বিদেশ ডেস্ক
  • ১১ মে ২০২০ ২৩:০২:১৯
  • ১১ মে ২০২০ ২৩:০২:১৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

করোনায় ফোকলা হলো শতবর্ষী এয়ারলাইন্স

ছবি : সংগৃহিত

করোনাভাইরাস মহামারীর প্রেক্ষিতে শতবর্ষী একটি বড় আন্তর্জাতিক বিমান সংস্থা একদম পথে বসে গেছে। এ নিয়ে বন্ধ হওয়া এয়ারলাইন্সের সংখ্যা দাঁড়ালো তিনে। গত মাসে অস্ট্রেলিয়ার ভার্জিন এয়ারলাইনস সরকারি সাহায্য পেতে ব্যর্থ হয়ে বন্ধ হয়ে যায়। আর মার্চ মাসে যুক্তরাজ্যের বাজেট ক্যারিয়ার ফ্লাইবিও করোনা মহামারীর প্রেক্ষাপটে তাদের আর্থিক চ্যালেঞ্জ নিতে পুরোপুরি অক্ষমতার কথা জানিয়েছিলো।

এদিকে কলম্বিয়ার বিমান সংস্থা এভিয়ানকা (এভিএইচ) রবিবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের দক্ষিণ জেলাতে দেউলিয়া হয়ে যাওয়ার জন্য মামলা দায়ের করেছে। কোভিড -১৯ মহামারীটির অপ্রত্যাশিত প্রভাব কেই এই পতনের জন্য তারা দায়ী করেছে।

১৯১৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এভিয়ানকা দাবি করেছে যে বিশ্বের দ্বিতীয় প্রাচীনতম ধারাবাহিকভাবে চলমান বিমান সংস্থা তারা। ইউরোমনিটারের মতে, গত বছরের শেষের দিকে চিলির ল্যাটম এয়ারলাইনস (এলটিএম) এবং ব্রাজিলের জিওএল লিনহাস আরিয়াস (জিওএল) এর পরে মার্কেট শেয়ারের ভিত্তিতে লাতিন আমেরিকার তৃতীয় বৃহত্তম বিমান সংস্থা ছিল এটি।
এয়ারলাইনসটি বলছে, বেলআউটের ফলে অনেক মানুষের চাকরি থেকে ছাটাই অনিবার্য হয়ে পড়েছিলো।

মহামারী থেকে ব্যবসায়িক ক্ষয়ক্ষতি হ্রাসে এটি তাদের ফ্লাইটের সময়সূচি, বিমান বসিয়ে রাখতে এবং কর্মীদের বিনা বেতনের ছুটি দিতে বাধ্য হয়েছে।

কলম্বিয়ার এ সংস্থা বলছে যে মহামারী খারাপ হওয়ার সাথে সাথে বিশ্বজুড়ে লকডাউন শুরু হলে তারা দারুণ ধাক্কা খায়। তারা বলছে,  বর্তমানে সংস্থাটি বিশ্বব্যাপী পরিচালিত দেশগুলোর মধ্যে ৮৮% দেশেই মোট বা আংশিকভাবে ভ্রমণ বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে।

দেউলিয়ার জন্য দায়ের করে মামলায় তারা বলছে, ‘কাজকর্ম রক্ষা ও সংরক্ষণের’ উদ্দেশ্য নিয়েই তারা এটা করতে বাধ্য হচ্ছে। আভিয়ানকাতে লাতিন আমেরিকা জুড়ে ২১ হাজার কর্মী কাজ করতো। এর মধ্যে কলম্বিয়াতেই করতো ১৪ হাজারেরও বেশি। তাছাড়া এভিয়ানকা কলম্বিয়াতে আমাদের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর মতো দেশের জাতীয় বাহক হিসেবেও পরিসেবা দিতো।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0781 seconds.