• বিনোদন প্রতিবেদক
  • ১৪ মে ২০২০ ০০:৫৫:০৬
  • ১৪ মে ২০২০ ০০:৫৫:০৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

‘চলচ্চিত্রের মানুষের পাশে ছায়ার মতো দাঁড়িয়েছেন নিপুণ আপা’

ছবি : সংগৃহীত

করোনা ভাইরাসের দুর্যোগে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন অনেক অভিনয় শিল্পী। তাদের মধ্যে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী নিপুণ আক্তার। এই করুণ সময়ে চলচ্চিত্রের অসহায় শিল্পী, কলাকুশলীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এই মহৎ কাজের জন্য নিপুণকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন চিত্রনায়ক সায়মন সাদিক।

বুধবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে সায়মন এই প্রশংসা করেন। নিপুণ চলচ্চিত্রের মানুষের পাশে ছায়ার মতো দাঁড়িয়েছেন উল্লেখ করে এই নায়ক লিখেছেন, ‘একজন নিপুণ আপা। হ্যাঁ, আমি উনাকে আপা বলেই ডাকি। খুব আপন মনে হয়। আমি চলচ্চিত্রের একজন সামান্য কর্মী। সেই সুবাদে চলচ্চিত্রের অনেক গুণী ও সন্মানিত মানুষদের সাথে কথা বলার ও চলার সৌভাগ্য হয়েছে। যার যার জায়গা থেকে সবাই ভালো এবং উদার। অনেকে এই চলচ্চিত্র শিল্প থেকে কোটি কোটি টাকা নিয়েছেন, আবার অনেকে এখানে এসে জীবনের সব কিছু হারিয়েছেন। যে যেই ভাবে চিন্তা করেছেন, সেটাই ফেরত পেয়েছেন। অনেকে বলেন আমাদের এই বি.এফ.ডি.সি নাকি গরম মাজার। বেশী গরম খাইলেই জীবন শেষ।আমার অল্প সময়ে আমি এমন ঘটনা কিছু দেখেছিও। যাই হোক,আসল কথায় আসি।আমরা সবাই জানি করোনা ভাইরাসের কারনে সারা পৃথিবীর মতো আমাদের দেশের অবস্থাও অনেক খারাপ। দেশের এই খারাপ সময়ে সবাই সবার পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী। আপনারা সবাই জানেন, আমাদের বি.এফ.ডি.সি তে প্রায় ১৮ টি সমিতি আছে। এই সমিতি গুলোর মধ্যে বেশীর ভাগ সমিতিই অর্থনৈতিক ভাবে অসচ্ছল (৩/৪ টা সমিতি বাদ দিয়ে) সব সমিতির নেতারা তাদের সদস্যদের সমস্যা নিয়ে কাজ করছেন, অসচ্ছল সদস্যদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। এছাড়াও আরো অনেক মানুষ আছেন,যারা কোনো সমিতির আওতাভুক্ত সদস্য না, কিন্তু তারা এখানেই বিভিন্ন কাজ করে সংসার চালায়। এই সকল সমিতির অসচ্ছল মানুষদের এবং আরো অনেক মানুষের পাশে ছায়ার মতো দাড়িয়েছেন নিপুন আপা, দিচ্ছেন আর্থিক সহায়তা। বিভিন্ন সমিতিতে কয়েক লক্ষ টাকা দিয়েছেন শিল্পী সমিতির মাধ্যমে। এনে দিচ্ছেন নিত্যপ্রয়োজনীয় খাবার। গিয়েছেন বৃদ্ধাশ্রমে, কাজ করছেন তাদের জন্য। প্রতিদিন শতশত মানুষের ইফতার দিচ্ছেন। কাজ করে যাচ্ছেন নিরবে।'

সায়মন আরও লেখেন, ‘সেদিন আমার সামনে চলচ্চিত্রের একজন সিনিয়র ফটোগ্রাফার পিন্টু দাদা (সভাপতি-স্থিরচিত্র গ্রাহক সমিতি) তাদের সমিতির জন্য সহযোগীতা নেয়ার সময় নিপুণ আপাকে বললেন, ম্যাডাম আপনি চলচ্চিত্রের ‘মাদার তেরেসা’। এটা শুনে নিপুন আপা হেসে বললেন, আমি খুব সাধারন। আমি চেষ্টা করছি আমাদের এখানের কোনো লোক যেনো অনাহারে না থাকেন। আমার যতটুকু সামর্থ্য আছে, তার পাশাপাশি আমার বিভিন্ন পরিচিত জনদের কাছ থেকে এনে আপনাদের আর্থিক সহযোগীতা করছি। যেনে আপনারা ভালো থাকেন। কারন আপনাদের কারনেই আমি নিপুণ। আমি আশা করবো, এখান থেকে যারা কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেছেন তারা যেনো কিছু টাকা দিয়ে হলেও চলচ্চিত্রের মানুষদের পাশে দাঁড়ান। আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম। আমি মনে মনে ভাবছিলাম, আপনি লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়েও কোনো নাম চাইছেন না। সবার মুখের হাসিই যেনো আপনার আনন্দ, শান্তি। মহান আল্লাহ্ আপনার এই পুরস্কার নিশ্চই দিবেন। আল্লাহ্’র কাছে দোয়া করি, তিনি যেনো সবসময় আপনার মুখে এই হাসি দিয়ে রাখেন আপা। আপনি যেনো সবসময় সুখে শান্তিতে থাকেন। কেও যেনো আপনার কোনো ক্ষতি না করতে পারেন। সবার পক্ষ থেকে আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আপা।'

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে তিনি চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন। ক্যারিয়ারে প্রায় অর্ধশত চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন নিপুণ। তিনি ইতিমধ্যে দুবার বাংলাদেশের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়লাভ করেছেন।

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0733 seconds.