• বিদেশ ডেস্ক
  • ১৬ মে ২০২০ ২১:৫১:২৬
  • ১৬ মে ২০২০ ২১:৫১:২৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ইসরাইলকে যুদ্ধের হুঁশিয়ারি দিলেন জর্ডানের বাদশা

জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ। ছবি : সংগৃহীত

অধিকৃত পশ্চিম তীরকে ইসরায়েলের অংশে পরিণত করার যে পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে তেলআবিব সেটার বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ। তিনি বলেছেন, এতে ভয়াবহ এক যুদ্ধের সূচনা ঘটতে পারে।

শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এক বৈঠকে ইসরায়েল এমন পদক্ষেপ নিলে প্রতিক্রিয়ায় ব্লক কী পদক্ষেপ নিতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করেছেন। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।

সম্প্রতি ইহুদি জনবসতি এবং জর্ডান উপত্যকা সম্প্রসারণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইসরায়েল। তবে এতে দীর্ঘদিন ধরে চলমান ও অচল অবস্থায় পড়ে থাকা শান্তি প্রক্রিয়া মুখ থুবড়ে পড়বে। পাশাপাশি একটি কার্যকর ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়বে। এসব নিয়ে জার্মানির ডার স্পাইজেল ম্যাগাজিনকে শুক্রবার এক সাক্ষাতকার দিয়েছেন জর্ডানের বাদশা আবদুল্লাহ।

তিনি বলেছেন, 'যেসব নেতা এক রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের পরামর্শ দেন তারা বোঝেন না, এর অর্থ কি হতে পারে। তিনি প্রশ্ন রাখেন যদি প্যালেস্টাইনিয়ান ন্যাশনাল অথরিটি ভেঙে যায় তাহলে কি ঘটতে পারে? এমনটা হলে তাতে আরো বিশৃংখলা সৃষ্টি হবে। পুরো অঞ্চলে উগ্রপন্থা বৃদ্ধি পাবে। যদি সত্যিকার অর্থে জুলাইয়ে পশ্চিম তীরে বসতি সম্প্রসারণ শুরু করে ইসরায়েল তাহলে, তা থেকে জর্ডানের সঙ্গে বড় আকারের যুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে। ইসরায়েলকে আটকাতে সব রকম ব্যবস্থা নেয়ার কথা বিবেচনা করবে জর্ডান।'

জর্ডান হলো পশ্চিমা ঘনিষ্ঠ একটি মিত্র। ইসরায়েলের সঙ্গে শান্তি চুক্তিতে স্বাক্ষর করা মাত্র দুটি আরব দেশের মধ্যে এটি অন্যতম দেশ। ইসরায়েলের বসতি সম্প্রসারণের ফলে স্বাক্ষরিত ওই চুক্তি হুমকিতে পড়বে কিনা সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান বাদশা আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, আমি কোনো হুমকি দিতে চাই না। যুদ্ধের পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাই না। তবে আমরা সব বিকল্প পন্থা বিবেচনা করছি। ইউরোপের অনেক দেশ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে আমরা একমত। তারা চান বল প্রয়োগমূলক আইন মধ্যপ্রাচ্যে প্রয়োগ করা হবে না।

উল্লেখ্য, ইসরায়েল সম্প্রতি দখলকৃত পশ্চিম তীরে তার বসতি সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে। তার প্রেক্ষিতে নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যে। ফিলিস্তিন কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা একমত হয়েছেন কূটনৈতিক উদ্যোগ নিতে, যাতে ইসরায়েলের এমন উদ্যোগকে থামানো যায়। তবে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা রাজনৈতিক অচলাবস্থা কাটিয়ে সরকার গঠনের চুক্তিতে পৌঁছে এক ধাপ এগিয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্য প্রাচ্য পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

জর্ডান ইসরাইল

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0709 seconds.