• বিনোদন ডেস্ক
  • ১৮ মে ২০২০ ১৬:০৩:০৩
  • ১৮ মে ২০২০ ১৬:০৩:০৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

অপূর্ব-নাজিয়া বিচ্ছেদে তানজিন তিশার কী

তানজিন তিশা। ছবি : সংগৃহীত

অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও নাজিয়া হাসান অদিতির সংসার ভেঙে গেছে। ৯ বছরের দাম্পত্য জীবনের বিচ্ছেদ হলো দুজনের। কিন্তু এ বিচ্ছেদের পেছনে ইঙ্গিতপূর্ণ হয়ে উঠেছেন এ সময়ের এক জনপ্রিয় তারকার। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে নানা রকম গুঞ্জন লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অপূর্ব। সোমবার মাঝরাতে ফেসবুকে নির্দিষ্ট করে কারো নাম উল্লেখ না করে একটি স্ট্যাটাস দেন অপূর্ব। তবে এর পরপরই একই প্রসঙ্গ নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন তানজিন তিশা। এতে সন্দেহ আরো ঘনিভূত হয়। সহজাত প্রশ্ন উঠেই যায়, অপূর্ব-নাজিয়া বিচ্ছেদে তানজিন তিশার কী?

সোমবার রাতে অপূর্ব ওই স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং তীর্যক, মিথ্যা বানোয়াট মন্তব্য করে তাদের কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো খারাপ কাজগুলো থেকে সবাই বিরত থাকবেন। রসালো কোন গল্প তৈরি করে সংবাদ করার চেষ্টা করবেন না, প্লিজ।' অপূর্ব সেখানে এও লিখেছেন, 'অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমি এবং আমার স্ত্রী অদিতি (নাজিয়া হাসান) অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্য দিয়ে আমাদের সম্পর্কের আইনগত ইতি টেনেছি। কোন সংবাদমাধ্যম এই ব্যাপারে তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোন ধরনের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আইনগত ব্যবস্থা নেব। অলরেডি প্রকাশিত কিছু সংবাদের লিংক আমি সংগ্রহ করেছি। আমি অদিতিকে সম্মান করি এবং আজীবন করব। সুতরাং কোনোভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কারো নাম আমি সহ্য করব না। ভুলে যাবেন না, অদিতি এখন আইনগতভাবে আমার স্ত্রী না থাকলেও সে আমার সন্তানের মা।'

তবে অপূর্বর এমন স্ট্যাটাসের কিছুক্ষণ পরেই তানজিন তিশা লিখেছেন, 'আমি সাধারণত গুজবে সাড়া দিই না। তবে আজ আমি অনুভব করছি যে, কয়েকটি অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত চলমান গসিপ বন্ধ করা উচিত। দয়া করে আমার নামটি ব্যবহার করবেন না, এতে আমার সহশিল্পী এবং তাঁর পরিবারের চলমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। আমি সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করি যে, কেউ আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এসব করছে।'

ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের উদ্দেশ্যে তানজিন তিশা লিখেছেন, 'দয়া করে এসব মিথ্যা খবর বিশ্বাস করবেন না।'

সাংবাদিকদের অনুরোধ করে তিশা লিখেছেন, এই ধরনের ভিত্তিহীন গল্পে তার নাম যেন উল্লেখ না করা হয়। যারা এই কাজটি চালিয়ে যাবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কয়েক মাস ধরে টানাপোড়েন চলছিল অভিনয়শিল্পী অপূর্বর সংসারে। আলাদা থাকছিলেন স্ত্রী নাজিয়া হাসান ও অপূর্ব। অবশেষে ১৭ মে, রবিবার বিকেলে নাজিয়া হাসান তার ফেসবুকে লিখেন, ‘স্টপ কলিং মি ভাবি এভরিওয়ান।’

তার এ পোস্ট থেকে পরিষ্কার হয়ে যায় তারা আর একসঙ্গে নেই। এমনকি নিজের প্রোফাইলে 'ডিভোর্স' শব্দটিও যুক্ত করে নিয়েছেন নাজিয়া।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১০ সালের ১৯ আগস্ট অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে বিয়ে করেছিলেন অপূর্ব। যদিও এর পরের বছরের ফেব্রুয়ারিতেই ডিভোর্স হয়ে যায় তাদের। ওই বছরের ১৪ জুলাই পারিবারিকভাবে নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেন অপূর্ব।

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0787 seconds.