• অর্থনীতি ডেস্ক
  • ২৩ মে ২০২০ ০৯:৩৮:০৯
  • ২৩ মে ২০২০ ০৯:৩৮:০৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বকেয়া অর্থ পরিশোধ না করলে

ব্রিটিশ কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করার হুঁশিয়ারি

ছবি : সংগৃহীত

রপ্তানি হওয়া তৈরি পোশাকের বকেয়া অর্থ পরিশোধের জন্য একটি ব্রিটিশ কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে দেশের তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের দুই সংগঠন-বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ। বাংলাদেশের কয়েকটি পোশাক কারখানায় প্রায় ৮২ লাখ ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল করায় যুক্তরাজ্যের এডিনবার্গ উলেন মিলস (ইডব্লিউএম) গ্রুপকে এই হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি নভেল করোনাভাইরাসের কারণে সম্প্রতি বাংলাদেশের রিভার সাইড সোয়েটার, স্কাইলাইন অ্যাপারলেস, সাউর্দান ডিজাইনারস লিমিটেডসহ কয়েকটি কারখানার ১১ লাখ ৯৫ হাজার পিস পোশাকের ক্রয়াদেশ বাতিল করেছে।

ইডব্লিউএমের প্রধান নির্বাহী ফিলিপ অ্যাডওয়ার্ড ডে’র কাছে বাংলাদেশের পোশাক মালিকদের দুটি সংগঠনের পক্ষে বিজিএমইএর সভাপতি রুবানা হক গত ২১ মে, বৃহস্পতিবার ই-মেইল করেন।

এতে তিনি লিখেন, ২৫ মার্চ পর্যন্ত ইডব্লিউএম ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানের ক্রয়াদেশের বিপরীতে যেসব পণ্য তাদের মনোনীত ফ্রেইড ফরোয়ার্ডের মাধ্যমে জাহাজিকরণ সম্পন্ন করা হয়েছে তার অর্থ ২৯ মের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।

এছাড়া ইতিমধ্যে যেসব ক্রয়াদেশ দেওয়া হয়েছে, সেগুলোর বিষয়েও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে ৫ জুনের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে হবে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

এসব বিষয়ে সমাধান না হলে ইডব্লিউএমের কোনো নতুন ক্রয়াদেশের জন্য বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ শুল্কমুক্ত কাঁচামাল আমদানির সনদ ইউটিলাইজেন ডিক্লারেশন বা ইউপি ইস্যু করবে না বলেও সতর্ক করা হয় এতে।

ই-মেইলে ইডব্লিউএমকে বকেয়া অর্থ পরিশোধ ও নির্দেশনাগুলো মেনে চলারও অনুরোধ জানানো হয়।

এতে আরো লেখা হয়, নির্দেশনা অনুসরণ না করলে ইডব্লিউএম ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা ছাড়া বিকল্প উপায় থাকবে না।

সেটি হলে ভবিষ্যতে বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর সদস্যদের সঙ্গে ইডব্লিউএম ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা করার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হক বলেন, ‘আমরা কখনই ক্রেতাদের সঙ্গে দ্বন্দ্বে যেতে চাই না। ব্যবসার ক্ষেত্রে আমরা সব সময়ই কৌশলী।’

তবে তাদের ব্যবসা হুমকির মধ্যে পড়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সে জন্য ক্রেতাদের র‌্যাংকিং করা প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।’

ব্যবসা টেকসই করতে অনেক আলোচনা হলেও পোশাক ক্রয়ের ক্ষেত্রে নিয়মনীতি মানা হচ্ছে না উল্লেখ করে রুবানা জানান, অনেক ক্রেতা পোশাকের দাম না দিয়েও শ্রমিকের বেতন-ভাতা পরিশোধের চাপ দেয়। এটি একেবারেই অন্যায্য।

তাই ইতিবাচক পরিবর্তনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে বলেও উল্লেখ করেন বিজিএমইএ’র সভাপতি।

বাংলা/এসএ/

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0706 seconds.