• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৭ মে ২০২০ ১৬:০৬:৩৫
  • ২৭ মে ২০২০ ১৬:০৬:৩৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

খাবার-পানি ছাড়াই বেঁচে থাকা সাধু মারা গেলেন ৯০ বছর বয়সে

প্রহ্লাদ জানি। ছবি : সংগৃহীত

ভারতে পানি ও খাবার ছাড়াই ৭৬ বছর বেঁচে থাকার দাবি করেছিলেন সাধু প্রহ্লাদ জানি। সাধারণ লোকজন তাকে চুনরিওয়ালা মাতাজি বলেও ডাকতেন। গুজরাটের গান্ধীনগরে মৃত্যু বরণ করেছেন এই সাধু। সাধু প্রহ্লাদ জানির শিষ্যরা তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। ৯০ বছরের এই সাধু স্থানীয়দের মধ্যে বেশ জনপ্রিয় ছিলেন।

গোটা গুজরাটেই চুনরিওয়ালা মাতাজির অগণিত ভক্ত রয়েছে। ২০০৩ সালে ও ২০১০ সালে দুবার বিজ্ঞানীরা তার ওপর গবেষণা করেছিলেন। সত্যিই কি তিনি ৭৬ বছর ধরে খাবার ও পানি ছাড়া বেঁচে ছিলেন! এমন খবর প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম জিনিউজ।

ওই সাধু দাবি করেছিলেন, বেঁচে থাকার জন্য অন্যদের মতো তার খাবার ও পানির প্রয়োজন পড়ে না। শ্বাস—প্রশ্বাসটুকু রয়েছে মানেই তিনি জীবিত রয়েছেন! আর তাকে রক্ষা করছেন ঈশ্বর।

বনসকাথা জেলায় অম্বাজি মন্দিরের কাছে একটি গুহার ভিতর চুনরিওয়ালা মাতাজির আশ্রম। তার মৃতদেহ এদিন সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়। মৃত্যুর কয়েকদিন আগেই তাকে চরাদায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তিনি জীবনের শেষ কয়েকটা দিন নিজের পুরনো জায়গায় কাটাতে চেয়েছিলেন। আশ্রমে তার মরদেহ রাখা থাকবে দুদিন। সেখানে ভক্তরা এসে শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন। এরপর আশ্রমেরই একটি অংশে তাকে সমাধিস্থ করা হবে।

হিন্দুদের দেবী অম্বার পরম ভক্ত ছিলেন চুনরিওয়ালা মাতাজি। আর সে জন্য তিনি সব সময় লালা শাড়ি পরে থাকতেন। এমনকি সিঁথিতে সিঁদুরও দিতেন। অনেক ছোট বয়সে আধ্যাত্মিক চর্চা করার জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান তিনি। এরপর ১৪ বছর বয়স থেকেই নাকি তিনি খাবার ওপানি ছাড়া বেঁচে ছিলেন।

ডিফেন্স ইনস্টিটিউট অফ ফিজিওলজি অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সেস (ডিআইপিএএস) ২০১০ সালে চুনরিওয়ালা মাতাজির ওপর গবেষণা করেছিল। ১৫ দিন ধরে লক্ষ্য করা হয়, কীভাবে তিনি খাবার ও পানি ছাড়া বেঁচে আছেন।  এরপর জানানো হয়, চুনরিওয়ালা মাতাজি এভাবেই বেঁচে থাকার অভ্যেস করে ফেলেছেন।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0592 seconds.