• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৮ মে ২০২০ ১৭:৫৪:১৪
  • ২৮ মে ২০২০ ১৭:৫৫:৩৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

স্পাইডারম্যান হতে মাকড়শার কামড় খেলেন ৩ ভাই, অতপর...

ছবি: সংগৃহীত

স্পাইডারম্যান হওয়ার স্বপ্নে বিভোর তিন ভাই। আর স্বপ্নকে সত্যি করার জন্য মারাত্মক কাণ্ড ঘটালেন তারা। এই সুপারহিরোর ম্যাজিকে সারাদিন মজে থাকতো তিন ভাই। স্পাইডারম্যান হওয়ার নেশায় মাকড়শার কামড় খান তারা। বিষাক্ত এই মাকড়শার কামড় খেয়ে এখন হাসপাতালে তারা।   

বলিভিয়ার পোতোসির চায়ান্ত শহরে এমন ঘটনাটি ঘটেছে। ৮, ১০ ও ১২ বছর বয়সের তিন কমিক বইয়ের গল্প ও সিনেমায় দেখানো ঘটনা অনুযায়ী স্পাইডারম্যান হতে চান তারা। এজন্য তিন ভাই মিলে মাকড়শার কামড় খাওয়ার পরিকল্পনা করে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফির বরাত দিয়ে এমন খবর প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম নিউজ এইট্টিন।

সেই পরিকল্পনা মতো তিন ভাই মিলে ব্ল্যাক উইডো মাকড়শা যোগাড় করেন এবং তার কামড় খায়। মারাত্মক বিষাক্ত এই মাকড়শার কামড়ে তিন জনের শরীরেই ছড়িয়ে পড়েছে বিষ। এখন হাসপাতালে শুয়ে জীবন-মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করেন তারা।

ব্ল্যাক উইডো মাকড়শা পৃথিবীর অন্যতম ভয়ঙ্কর এবং মারাত্মক বিষাক্ত মাকড়শা বলে জানায় সংবাদমাধ্যম ন্যাশনাল জিওগ্রাফি।

জানা গেছে, যখন বাড়িতে কেউ ছিল না, বাচ্চাগুলোর মাও কাজে বাইরে গিয়েছিলেন, তখনই ব্ল্যাক উইডো মাকড়শা নিয়ে নিজেদের গবেষণা শুরু করে তিন ভাই। এ সময় তারা লাঠি দিয়ে ক্রমাগত খোঁচাতে থাকে। এতে করে ক্ষুব্ধ ব্ল্যাক উইডো মাকড়শাটি তিনজনকে আক্রমণ করে এবং কামড়ে দেয়। সঙ্গে সঙ্গে বিষ ছড়িয়ে পড়ে তাদের শরীরে। বিষের অসহ্য জ্বালায় অসুস্থ হয়ে পড়ে তিনজন। এ ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই তাদের মা বাড়ি ফিরে তিন সন্তানের অবস্থা দেখে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। অবস্থা খারপ দেখে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বলিভিয়ার স্বাস্থ্য দপ্তরের সূত্র জানায়, বিষের প্রভাবে মারাত্মক জ্বর ও মাংসপেশীর যন্ত্রণার ছটফট করতে থাকে তিন ভাই। অবস্থার মারাত্মক অবনতি হওয়ায় তিনবার তিন হাসপাতালে স্থানান্তরিত করতে হয়েছে। অবশেষে একসপ্তাহ যমে মানুষে লড়াইয়ের পর আপাতত সুস্থ হয়ে উঠেন তারা।

এ বিষয়ে মনোবিদরা জানান, বাচ্চার অনেক বেশি কল্পনাপ্রবণ হয়। তারা যা দেখে বা পড়ে সেটাকেই বেশিরভাগ সময় বাস্তব বলে ভেবে বসে। কার্টুনে দেখানো ঘটনাকেই সত্যি বলে ধরে নেয়। তাই এমন দুর্ঘটনা এড়াতে অভিভাবকদের আরো সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0722 seconds.