• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৪ জুন ২০২০ ১০:১১:৩৫
  • ১৪ জুন ২০২০ ১০:১১:৩৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

নাসিমের মৃত্যুতে ব্যঙ্গোক্তি, বেরোবি শিক্ষক মনিরা গ্রেপ্তার

ছবি : সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে ফেসবুকে ব্যঙ্গোক্তি করায় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) বাংলা বিভাগের প্রভাষক সিরাজাম মনিরা। গতকাল ১৩ জুন, শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে তাকে সর্দারপাড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে রংপুরের তাজহাট থানা পুলিশ।

ছাত্রজীবনে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের সহ-সভাপতি সিরাজাম মুনিরাকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের করা আইসিটি মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

তাকে গ্রেপ্তারের তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মুহিব্বুল ইসলাম।

জানা যায়, গতকাল ১৩ জুন, শনিবার আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুর পরপরই তাকে ব্যঙ্গোক্তি করে একটি ফেসবুক পোস্ট দেন সিরাজাম মনিরা। তবে কিছুক্ষণ পরই সেটি মুছে ফেলেন তিনি। তবে ততক্ষণে স্পর্শকাতর সেই পোস্টটির স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে যায়।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় আওয়ামীপন্থী শিক্ষক সংগঠন ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিযুক্তের চাকরিচ্যুতের দাবি জানান। তখন তার বিরুদ্ধে মামলা প্রস্তুতি নেয়া হয়।

তবে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের করা আইসিটি আইনের মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে নিশ্চিত করেন মেট্রোপলিটন তাজহাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রবিউল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের করা আইসিটি আইনে করা মামলায় শিক্ষক সিরাজাম মুনিরাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলা নম্বর ৮, তারিখ ১৪/০৬/২০২০।’ তবে গ্রেপ্তারের পর তাকে কোথায় রাখা হয়েছে এবিষয়ে কিছু বলেননি তিনি।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘নিরাপত্তার স্বার্থে বলা যাচ্ছেনা, তবে পুলিশ হেফাজতে আছেন।’

এ বিষয়ে ভিন্ন দাবি তুলে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া বলেন, ‘আমার দায়ের করা মামলায় সিরাজাম মনিরাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, কিন্তু গ্রেপ্তারের ৩০ মিনিট পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের লোকজন এসে প্রশাসনের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর চেষ্টা করছে।’

বাংলা/এসএ/

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0729 seconds.