• ফিচার প্রতিবেদক
  • ২৭ জুন ২০২০ ১৩:২২:১৬
  • ২৭ জুন ২০২০ ১৩:২২:১৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আদায় আছে রোগ নিরাময়ের ১০ গুণ

ফাইল ছবি

আমরা আদা মূলত মসলা হিসেবে খাই। এটি খাবারের স্বাদ এবং সুগন্ধ বাড়িয়ে দেয়। কিন্তু জানেন কি এর অনেক ভেষজ গুণাগুণও রয়েছে? নিয়মিত আদা খেলে তা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। হার্ট এ্যাটাক, স্ট্রোক এবং ডায়াবেটিসের মতো জটিল রোগের বিরুদ্ধে এটি দারুণ কাজ করে থাকে।

যাই হোক, নিচে আমরা আদার ১০ টি উপকারিতা তুলে ধরা হলো। আশা করি আপনাদের কাজে লাগবে।

১. বমি বমি ভাব কমায় :

আদা সকাল বেলায় বমি ভাব, অন্য সময়ে বমি বমি ভাব বা গর্ভাবস্থায় বমি বমিভাব যাই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে কার্যকর। এটি ক্যান্সার রোগীদের কেমোথেরাপি এবং সার্জারির পরেও বমি থেকে মুক্তি দিতে পারে। আপনি যদি সমুদ্রের অসুস্থতা অনুভব করেন তবে এটি সহায়ক। বমি বমি ভাব প্রতিরোধের জন্য আপনি ১ থেকে ১.৫ গ্রাম পরিমাণ আদা খেতে পারেন।

২. হৃদরোগ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায় :

হৃদরোগ এবং স্ট্রোক প্রতিরোধের জন্য আদা অন্যতম সেরা ঘরোয়া প্রতিকার। আদা, পেঁয়াজ, রসুন রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেয়। এই প্রাকৃতিক উপাদান আপনার হার্টকে স্বাস্থ্যকর রাখে এবং স্ট্রোক এবং হার্ট অ্যাটাক থেকে রক্ষা করে।

৩. ব্যথা এবং পেশির ব্যথা হ্রাস করে :

আদা পেশি ব্যথা এবং ব্যায়ামের কারণে হওয়া ব্যথার বিরুদ্ধে কার্যকরী প্রাকৃতিক টোটকা। এটি আপনাকে ব্যথা থেকে তাৎক্ষণিকভাবে মুক্তি দিতে পারে না তবে পেশিগুলোতে ব্যথা আর বাড়তে দেয় না।

৪. হজমে সহায়তা করে :

আদা হজমে সহায়তা করে এবং আপনার হজম প্রক্রিয়াকে সুস্থ রাখে। এটি পেটের ব্যথা এবং অস্বস্তির জন্য ব্যবহার করা হয়। এতে কারমিনেটিভ নামক একটি যৌগ রয়েছে যা হজমতন্ত্রকে প্রশান্ত রাখে এবং অতিরিক্ত গ্যাস নির্মূল করে।

৫. অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণ :

এতে প্রদাহ বিরোধী গুণ রয়েছে। নিয়মিত সেবন করলে অস্টিওপরোসিসে (হাড় নরম) আক্রান্ত রোগীদের ব্যথা হ্রাস করে। অস্টিওপোরোসিস আক্রান্ত ২৪৭ রোগীর উপর পরিচালিত একটি সমীক্ষা অনুসারে দেখা গেছে, আদা নিয়মিত খাওয়া রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যথার ওষুধ কম লেগেছে।

৬. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করে :

আদা প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করে। কারণ এটি লিম্ফ্যাটিক সিস্টেমকে পরিষ্কার করে। এটি শরীরে জমে থাকা টক্সিনকে ভেঙে দিয়ে শরীর থেকে বের করে দেয় এবং শরীরকে উষ্ণ রাখে। আপনার দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলা ছাড়াও আদা শ্বাসকষ্টেও কাজ করে।

৭. ছত্রাক এবং ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করে :

আদাতে উপস্থিত আদা ফাঙ্গাস এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। আদাতে স্ট্রেপ্টোকোকাস এবং স্টাফিলোকক্কাস অরিয়াসের মতো ব্যাকটেরিয়া দমনের ক্ষমতা আছে। বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধে আদা কার্যকর। মশলাটিতে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্যও রয়েছে।

৮. মাসিকের ব্যথা হ্রাস করে :

মাসিকের ব্যথা এবং অস্বস্তি দূর করতে আদা ব্যবহার করা যেতে পারে। মশলা আইবুপ্রোফেন এবং মেফেনামিকের মতো ড্রাগ হিসাবে কার্যকর। আপনাকে যা করতে হবে তা হ'ল আপনার পিরিয়ডের প্রথম তিন দিনে দিনে একবারে এক গ্রাম আদা খাওয়া। এটি মাসিক রক্তপাতের সময় ব্যথা হ্রাস করবে।

৯. ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সহায়তা করে :

জৈব কার্যকরী যৌগিক আদা ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়ায় এবং ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সহায়তা করে। এটি আপনাকে ডায়াবেটিস এবং ডায়াবেটিস সম্পর্কিত জটিলতা থেকে রক্ষা করতে পারে। এটি ডায়াবেটিসের সাথে সম্পর্কিত জটিলতাকে দূর করতে পারে।

১০. পেটের আলসার নিরাময় করে :

আদা পেটের আলসারের বিরুদ্ধে খুবই কার্যকর।এটি আপনার হজম ঠিক রাখে এবং আপনার পেট সুস্থ রাখে। মশলাটি আলসার চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত ওষুধের চেয়ে বেশি কার্যকর বলে মনে করা হয়।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আদা রোগ নিরাময় গুণ

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0737 seconds.