• ০১ জুলাই ২০২০ ২২:২৪:৪৫
  • ০১ জুলাই ২০২০ ২২:২৪:৪৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

‌দীর্ঘ সময় মাস্ক পরে থাকার পরের মুখের যত্ন

ছবি : সংগৃহীত

কোভিড থেকে বাঁচতে একটানা মাস্ক পরে থাকার ফলে কেমন মুখে মাস্কের মতো দাগ হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন একটানা মুখে মাস্ক পরতে পরতে সত্যিই অনেকরকম ত্বকের সমস্যা দেখা দিতে পারে। ঠিক যেমন একটানা ঘড়ি পরতে পরতে ওই জায়গাটা বরাবর ত্বকের রঙে তফাত হয়ে যায়, একই সমস্যা হতে পারে একটানা মাস্ক পরলেও। সঙ্গে ব্রণ, অ্যালার্জি, র‍্যাশের মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে ত্বকে।

মাস্ক পরলে ত্বকে সমস্যা হয় কেন?
মাস্ক পরলে তা নাক আর মুখের উপর চেপে বসে, ফলে বাতাস ঠিকমতো লাগে না মুখে। কাজেই ওই অংশের তাপমাত্রা আর আর্দ্রতা খুব বেড়ে যায়। মাস্ক পরলে মুখ শুধু গরম আর ভেজা ভেজা লাগতে শুরু করে কিছুক্ষণ পর থেকেই? গরম আর ঘাম একসঙ্গে ত্বকে বিক্রিয়া করে, যার ফলে ব্রণ, ত্বকের রঙে তফাত, ট্রমা লাইনের মতো সমস্যা দেখা দেয়। 

এখন কোভিড থেকে বাঁচতে মাস্ক পরা যখন বাধ্যতামূলক, তখন ত্বকের এই অবস্থা কি হতে দিব কিছুই করার নাই!! 

মোটেই নয়! মাস্ক তো পরতেই হবে, তবে সেই সঙ্গে জেনে রাখতে হবে কিছু কৌশল যেন ত্বকটাও ভাল থাকে। 

মাস্ক পরার ফলে ত্বকে কী কী ধরনের সমস্যা হতে পারে, আর তার থেকে বাঁচার উপায়ই বা কী? তার কিছু টিপস:

ব্রণ:
নাক-মুখ একটানা চাপা মাস্ক দিয়ে ঢেকে রাখার ফলে ওই অংশে খুব ঘাম হয়। যাঁদের এমনিতেই ব্রণর প্রব্লেম, তাঁদের সমস্যা বেশি হয়। মুখের এই অংশ ব্রণয় ভরে যায়, ব্যথাও হয়। এ ক্ষেত্রে স্পট ট্রিটমেন্ট সবচেয়ে ভালো কাজ দেবে। ব্রণ নিরাময়ের যে সব ক্রিম ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়, তা ব্যবহার করে দেখুন। চন্দন বেটে ব্রণর উপরে লাগালে আরাম পাবেন। বাইরে থেকে ফিরে মুখ অয়েল-ফ্রি ফেসওয়াশ দিয়ে ধুয়ে হালকা ময়শ্চারাইজার লাগান।

ঘাম:
একে প্রচণ্ড গরম, তার উপর মাস্কে নাকমুখ ঢাকা, এ অবস্থায় ঘাম তো হবেই! আপনার সর্দিকাশির মতো কোনও উপসর্গ না থাকলে বাড়ির ভিতরে মাস্ক পরে থাকার দরকার নেই। বাইরে যাওয়ার সময় ব্যাগে ওয়েট টিস্যু রাখুন। মুখ ঘেমে গেলে টিস্যু দিয়ে মুছে নিন। নরমাল সেলাইন সাদা তুলায় ভিজিয়ে মুখ মুছতে পারেন। এতে করে মুখের ময়লা কাটে। 

লালচেভাব:
এখন অনেক জায়গায় ডাঃ রা ১২ ঘন্টা ডিউটি করে, অনেকেই ৯-৫ টা অফিস করে,  এতক্ষণ মাস্ক পরলে তাঁদের ত্বক লাল হয়ে যাওয়ার বা র‍্যাশ বেরোনোর সম্ভবনা  থেকেই যায়। অনেক সময় জায়গাটা চুলকোয়, আঁশের মতো চামড়া উঠতে থাকে। মাস্কের মেটেরিয়ালের সঙ্গে ত্বকের বিক্রিয়ায় এমন হয়ে থাকে। বাড়ি ফিরেই মাস্ক খুলে ফেলুন। ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন জায়গাটা। তারপর আলুর রস অথবা শসার রস লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে নিন,, ধীরে ধীরে লালচেভাব কেটে যাবে।

অ্যালার্জি:
মুখে মাস্ক পরলেই অনেকের জ্বালা করে চুলকায়, দানা দানা বেরোয়। সম্ভবত  যাদের এলাজির প্রব্লেম আছে তাদের একটু বেশি হয় এটা। এমন প্রব্লেম হলে এলাজির  অসুধ খেতে হবে, মুখ সবসময় পরিস্কার রাখতে হবে, মুখে এলভেরা জেল ইউস করতে পারেন। ভাল মেটেরিয়াল এর মাস্ক পরতে হবে, প্রয়োজনে একজন স্কিন  ডাঃ এর সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

ত্বকের রঙে তফাত:
একটানা কোনও জায়গা চাপা থাকলে সে অংশে রঙের তফাত হয়ে যায়। একটানা মাস্ক পরার অভ্যেস করে ফেললে আপনার মুখেও একই অবস্থা হবে, অর্থাৎ মাস্কের ঠিক নিচের অংশটুকুর রং মুখের বাকি অংশের চেয়ে হালকা দেখাবে। সেক্ষেত্রে  চোখে সানগ্লাস পরতে পারেন, একটা সানব্লক ইউস করতে পারেন, বাসায় ফিরে এসে মুখে ময়দা অথবা শশার রস লাগাইয়ে রেখে ধুয়ে ফেলতে পারেন।

বিশেষ টিপস
পরিষ্কার শুকনো মাস্ক পরুন:  বাইরে বেরোলে সঙ্গে দু' তিনটি বাড়তি মাস্ক রাখুন। সঠিক নিয়মে মাস্ক পরুন। মাস্ক এর ভিতরে হাত দিবেন না।

মাস্ক পরার আগে মুখে সানব্লক ক্রিম  বা সানব্লক পাউডার মেখে নিন: মাস্ক ত আর বাসায় পরে থাকবেন ন, পরে বাইরে যাবেন।  মাস্ক পরার আগে সানব্লক ইউসকরে তার উপর হাল্কা করে পাউডআর লাগিয়ে নেন। এতে করে মুখ টাও কম ঘামাবে।

ত্বকের নিয়মিত যত্ন নিন: মুখ নিয়মিত পরিষ্কার করে টোনার আর ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে রাখুন। বাইরে গেলে সানব্লক ইউস করুন, বাসায় এসে ভাল করে মুখ ধুয়ে ফেলুন, নিয়মিত লেবু, মালটা, কমলা,  সবুজ শাক সবজি খাবেন। রাতে ৮ ঘন্টা ঘুমাবেন,  রাত জাগা থেকে বিরত থাকবেন।

স্কিন ভাল রাখতে বরফ:  ত্বক খুব জ্বালা করলে বা লাল হয়ে গেলে বরফের কমপ্রেস নিতে পারেন। পাতলা কাপড়ে বরফ মুড়ে লাল হয়ে যাওয়া অংশে ধীরে ধীরে লাগালে আরাম পাবেন।

ডাঃ সৈয়দা সামিনা  মাহজাবিন
(চর্ম ও যৌন বিভাগ)
কেন্দ্রিও পুলিশ হাসপাতাল রাজারবাগ.
ডাঃ ঝুমুখান লেজার মেডিকেল সেন্টার

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

মাস্ক মুখের যত্ন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0729 seconds.