• বিদেশ ডেস্ক
  • ২২ জুলাই ২০২০ ২০:৪৪:২৩
  • ২২ জুলাই ২০২০ ২০:৪৪:২৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

সুস্থ হওয়ার ৩ মাসেই কমছে অ্যান্টিবডি : গবেষণা

ফাইল ছবি

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারীতে বিপর্যস্ত মানবসভ্যতা। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু আর আক্রান্তের সংখ্যা। যদিও করোনায় মৃত্যুর চেয়ে সুস্থ হওয়ার সংখ্যাই বেশি। তবে সুস্থ হওয়া ব্যক্তিদের শরীরে বেশিদিন স্থায়ী হচ্ছে না করোনার অ্যান্টিবডি।

নতুন এক গবেষণা প্রতিবেদেন এমন দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা। এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে ‘নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিন’।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার মাত্র তিনমাসের মধ্যেই দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমেছে। এতে করে সুস্থ হওয়া ব্যক্তি আবারো করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে। বিশেষ করে হালকা উপসর্গই যারা করোনা থেকে সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

গবেষকরা জানান, ৩৪ জন করোনা রোগীকে বাছাই করা হয়। যাদের শরীরে সংক্রমণ মারাত্মক পর্যায়ে যায়নি বা হালকা ও মাঝারি উপসর্গ ছিলো। তাদের মধ্যে কয়েকজনকে অক্সিজেন দিতে হয়েছিল। তবে ভেন্টিলেটর দেয়া বা ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটেও ভর্তি করতে হয়নি। এমন ৩৪ জন রোগীকে পর্যবেক্ষণে রেখে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

তারা আরো জানান, প্রথম পর্যায়ে উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর থেকে ওই ৩৪ জনকে ৩৭ দিন পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। এ সময়ের মধ্যে তাদের শরীরে করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছিল। তখন তাদের অ্যান্টিবডির পরিমাণও মেপে রাখা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ে তাদের ৮৬ দিন পর্যবেক্ষণ করা হয়। আর এ সময় দেখা গেছে, অ্যান্টিবডি অনেকটা কমে যাচ্ছে। মাত্র ৭৩ দিনে কমে যায় অ্যান্টিবডি।

এ বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আরো গবেষণা প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। এর কারণ হিসেবে তারা বলছেন, এর আগে অন্য একটি পর্যবেক্ষণ করা হয়। সেখানে দেখা গিয়েছিল, ৯০ দিনের মধ্যে  শরীরের অ্যান্টিবডি কমছে।

কেন এমন হচ্ছে সে বিষয়ে এখনো কিছু জানাতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। তবে বিজ্ঞানীদের একাংশের ধারনা, খুব দ্রুত নিজেদের জিনের পরিবর্ত ঘটাতে পারে করোনাভাইরাস। ফলে প্রতিরোধ ক্ষমতা দ্রুত দুর্বল হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ওয়ার্ল্ডোমিটার’র তথ্য মতে, ২২ জুলাই, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত সারা পৃথিবীতে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে ১ কোটি ৫০ লাখ ৯৩ হাজার ২৪৬ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে ৬ লাখ ১৯ হাজার ৪৬৫ জন ইতোমধ্যে মারা গেছেন। বিপরীতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯১ লাখ ১০ হাজার ৬২৩ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন ৫৩ লাখ ৬৩ হাজার ১৫৮ জন করোনারোগী, যাদের মধ্যে ৬৩ হাজার ৬৮৮ জনের অবস্থা গুরুতর।

বাংলা/এনএন

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

Page rendered in: 0.0798 seconds.