• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২০:৩৭:০৯
  • ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ২১:৫৩:১৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আবারো পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলো ভারত

ফাইল ছবি

আবারো ঘোষণা ছাড়াই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। ১৪ সেপ্টেম্বর, সোমবার সকাল থেকে এখনো কোনো পেঁয়াজের ট্রাক সাতক্ষীরার ভোমরা বন্দর দিয়ে প্রবেশ করেনি। বেনাপোলের ওপারের পেট্রাপোলে আটকা পড়ে আছে পেঁয়াজ ভর্তি প্রায় ১৫০টি ট্রাক। তবে এ বিষয়ে লিখিতভাবে কোনো কিছু জানানো হয়নি।

সাতক্ষীরা ভোমরা বন্দরের সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, হঠাৎ করেই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। সোমবার সকাল থেকেই কোনো পেঁয়াজের ট্রাক প্রবেশ করেনি।

এদিকে ভারতের একটি সূত্র জানায়, দেশের সব বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ রয়েছে। বেনাপোল বন্দর দিয়ে সকালের দিকে ৫০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ ঢোকার পরপরই দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানিকারকদের সংগঠন।

বন্ধের কারণের বিষয়ে মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম বলেন, ‘ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে গেলে দাম নির্ধারণ করে দেয় ন্যাপেট নামের একটি সংস্থা। বর্তমানে এক টন পেঁয়াজের দাম ৩০০ ডলার ছিলো। সম্ভবত তা বাড়িয়ে ৫০০ অথবা ৭০০ ডলার নির্ধারণ করবে। তাই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। এছাড়া বর্তমানে যে রেটে ভারতীয় রপ্তানিকারকরা পেঁয়াজ রপ্তানি করছে এতে তাদের লোকসান হচ্ছে। যার কারণে ন্যাপেট পেয়াজ রপ্তানি বন্ধ করেছে। এবার ভারতেও পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে। মূলত উৎপাদন কম ও বেশি মূল্যে রপ্তানি করতে না পারায় পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত।’

ভোমরা বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মহসিন হোসেন বলেন, ‘সকাল থেকে বেলা ৪টা পর্যন্ত এখনো কোনো পেঁয়াজের ট্রাক বন্দর দিয়ে প্রবেশ করেনি। তাছাড়া পেয়াজ আমদানি বন্ধের কোনো কারণও জানা যায়নি।’

প্রসঙ্গত, গত বছরও কোনো ঘোষণা ছাড়াই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত। এতে করে দেশে পেঁয়াজের দাম আকাশ ছোঁয়া হয়। সে সময় পাকিস্তান, মিয়ানমার ও তুরস্কসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করে সরকার। এরপরও ওই সময় বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খায় সরকার।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0624 seconds.