• বিদেশ ডেস্ক
  • ১৬ অক্টোবর ২০২০ ১৪:৪১:১৮
  • ১৬ অক্টোবর ২০২০ ১৪:৪১:১৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

সমুদ্রে ১ মিলিয়ন টন দূষিত পানি ফেলবে জাপান

ছবি : দ্য গার্ডিয়ান থেকে নেয়া

ফুকুশিমা দাইচি পারমানবিক প্রকল্প থেকে প্রায় ১ মিলিয়ন টন দূষিত পানি সমুদ্রে ফেলবে জাপান। ফলে স্থানীয় মৎস্যজীবীরা তাদের শিল্প ধ্বংসের আশঙ্কা করছেন। এই দূষিত জল অবমুক্তকরণ শুরু হবে ২০২২ সালে এবং কয়েক দশক লাগবে সেই প্রক্রিয়া শেষ হতে। 

স্থানীয় মৎসীজীবীদের উদ্বেগ সত্ত্বেও দেশটির সরকার অনেক আগে থেকেই ইঙ্গিত দিয়ে আসছে যে এটি কাছের প্রশান্ত সাগরে ফেলা হতে পারে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এমন খবর প্রকাশ করেছে  দ্য গার্ডিয়ান।

দেশটির কিয়োডো নিউজ এজেন্সি জানায়, প্রকল্পটি থেকে নি:সরিত দূষিত জল আপাতত ১ হাজারের বেশি ট্যাংকে জমা করা হচ্ছে। দূষিত জল কি করা হবে তা নিয়ে বছরের পর বছর ধরে চলা বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে চলতি মাসের শেষে এ সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারে দেশটির সরকার।

এদিকে স্থানীয় মৎস্যজীবীরা আশঙ্কা করছেন ২০১১ সালের সুনামিতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া পারমানবিক প্রকল্প থেকে নি:সরিত দূষিত জলের কারণে তাদের শিল্প পুনরুদ্ধারে গলদঘর্ম পোহাতে হচ্ছে। এ অবস্থায় তাদের সুনাম ফিরে ফেতে পুনর্নিমাণ কাজ ভেস্তে যাবে।

প্রতিক্রিয়ায় সরকার জানায়, এটি ফুকুশিমার উৎপাদন বৃদ্ধি করবে এবং মৎস্যজীবীদের উদ্বেগ আমলে নেবে যাতে ভোক্তারা সামুদ্রিক খাবার উপভোগ করতে পারেন। 

তবে পরিবেশবাদীরা এ প্রচেষ্টার বিরোধিতা করে আসছেন। এটি সামুদ্রিক পরিবেশের উপর ব্যাপক মাত্রায় প্রভাব ফেলবে বলে তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ইতোমধ্যে, প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়া ওই অঞ্চল থেকে সামুদ্রিক খাবার ক্রয় করার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

প্রকল্পটি পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান টোকিও ইলেক্ট্রিক পাওয়ার অনুমান করছে যে দূষিত জল রাখার ট্যাংকগুলো ২০২২ সালের গ্রীষ্মে পূরণ হয়ে যাবে। 

প্রতিষ্ঠানটির অ্যাডভান্সড লিকুইড প্রোসেসিং সিস্টেম পানি থেকে উচ্চমাত্রায় তেজস্ক্রিয় উপাদানগুলো সরিয়ে নিচ্ছে ঠিকই কিন্তু সিস্টেমটি আরেকটি উপাদান ট্রিটিয়াম সরিয়ে নিতে সমর্থ নয়। ট্রিটিয়াম হল হাইড্রোজেনের একটি রেডিওঅ্যাক্টিভ আইসোটোপ যেটা পারমানবিক প্রকল্পটি নিয়মিতভাবে নি:সরণ করে এবং সমুদ্রের জলে নি:পতিত করে।

বাংলা/এনএডি

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0733 seconds.