• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৪ জানুয়ারি ২০২১ ১১:৩৯:২২
  • ২৪ জানুয়ারি ২০২১ ১৪:১৬:৫০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

পুতিনের ‘কারাগার’ ভাঙতে উত্তাল রাশিয়া

ছবি : সংগৃহীত

সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে রাশিয়া। রাজধানীর মস্কোসহ অন্তত ৬০টি শহরে গতকাল ২৩ জানুয়ারি, শনিবার বিক্ষোভ করেছে বিরোধী নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির সমর্থকরা।

ইতোমধ্যে পুলিশ নাভালনির তিন হাজারের বেশি সমর্থককে আটক করেছে। রাজধানী মস্কো থেকেই আটক করা হয়েছে এক হাজার ২০০ জনকে, এদের মধ্যে নাভালনির মুখপাত্র, একজন আইনজীবীসহ, বেশ কয়েকজন ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিও রয়েছেন। তবে আটকের কয়েক ঘণ্টা পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে নাভালনির স্ত্রী উলিয়াকে।

গতকাল নাভালনির মুক্তির দাবিতে ডাকা বিক্ষোভে লাঠিচার্জের পাশাপাশি ব্যাপক ধরপাকড় চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এদিন মস্কোতে বিক্ষোভকারীদের মারধর ও টেনেহিঁচড়ে পুলিশের গাড়িতে তুলতেও দেখা যায়।

বিক্ষোভকারীদের কঠোরভাবে দমনের ঘোষণা দিয়েছে দেশটির প্রশাসন। আর পুলিশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কোনো অননুমোদিত বিক্ষোভ ও উস্কানি সঙ্গে সঙ্গে দমন করা হবে।

তবে এতেও না থামার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা। তারা ইতোমধ্যে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

একজন বলেন, ‘ভয় পাওয়ার আর সময় নেই। যত বাধাই আসুক না কেন, আমরা সবাই এক হয়ে এর মোকাবিলা করব। এই চোর-দুর্নীতিবাজ সরকারের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করতেই হবে।’

অপর এক বিক্ষোভকারী বলেন, ‘আমি শুধু নাভালনির মুক্তির জন্য না, আমার পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এখানে এসেছি। বর্তমান সরকার নিজ স্বার্থ ছাড়া আর কিছুই বোঝে না। তাদের নেতৃত্বে দেশের কোনো উন্নয়ন সম্ভব না।’

রাশিয়া ক্রমে কারাগারে পরিণত হচ্ছে উল্লেখ করে এক নারী বিক্ষোভকারী বিবিসিকে বলেন, তিনি এসবের প্রতিবাদ জানাতে রাস্তায় নেমেছেন।

৫৩ বছর বয়সী সের্গেই রাদচেনকো বলেন, ‘ভয় নিয়ে বসবাস করতে করতে আমি ক্লান্ত। আজ শুধু নাভালনির জন্য নয়, আমার সন্তানদের জন্য রাস্তায় নেমেছি। কারণ এদেশে কোনো ভবিষ্যৎ নেই।’

দেশটির শতাধিক শহরে বিক্ষোভ হয়েছে বলে অসমর্থিত সূত্রে জানা গেছে। নাভালনির মুক্তির দাবিতে সড়কে নেমে এসেছেন আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা। মস্কোর সমাবেশে প্রায় অর্ধলাখ মানুষ সমবেত হয়েছিলেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। যদিও রুশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, সমাবেশে ৪ হাজার মানুষ ছিলেন।

গত বছরের আগস্ট মাসে নার্ভ অ্যাটাক বিষ দিয়ে পুতিনের প্রতিদ্বন্দ্বী বিরোধী নেতা নাভানলিকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। পরে চিকিৎসার জন্য তিনি জার্মানির রাজধানী বার্লিন যান। সেখান থেকে গত ১৭ জানুয়ারি, রবিবার মস্কো ফেরার পরপর বিমানবন্দরেই তাকে আটক করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে প্যারোলে মুক্তির শর্তভঙ্গের অভিযোগে ৩০ দিনের জন্য কারাগারে পাঠায় মস্কোর একটি আদালত।

এরপরই তার সমর্থকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিক্ষোভ সমাবেশ আহ্বান করে। অর্ধশতাধিক শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স

বাংলা/এসএ/

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0973 seconds.