• বিদেশ ডেস্ক
  • ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৫:৩৪:৫৮
  • ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৫:৩৪:৫৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানে মন্দির ভাংচুর

ছবি : সংগৃহীত

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের সাংঘর জেলার খিপ্রোতে একটি হিন্দু মন্দির ভাংচুর করা হয়েছে। সোমবার জন্মষ্টমী অনুষ্ঠান চলাকালীন এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিয়ে পাকিস্তানের মানবাধিকার কর্মী রাহাত অস্টিন টুইটারে একটি পোস্ট দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, সোমবার সিন্ধু প্রদেশের সাংঘর জেলার খিপ্রোতে হিন্দু ধর্মালম্বীরা তাদের দেবতা শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন পালন করছিল। এ সময় মন্দিরে ভাংচুর চালানো মানে তাদের দেবতাকে অপমান করা। খবর জি নিউজের

তিনি আরও লিখেছেন, পাকিস্তানে ইসলাম ধর্মের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের চর্চা করলে মৃত্যুদণ্ড পর্যন্ত দেওয়া হয়। অন্যদিকে অমুসলিমদের ধর্ম নিয়ে কিছু বললে এমনকী উপসনালয়  ভাঙলেও কোনো ধরনের শাস্তি হয় না।

পাকিস্তানে জন্ম নেওয়া খ্রিস্টান নাগরিক রাহাত জন অস্টিন দেশটির নির্যাতিত সংখ্যালঘুদের একজন। বর্তমানে পাকিস্তান থেকে পালিয়ে সপরিবারে তিনি দক্ষিণ কোরিয়ায় বসবাস করছেন। সম্প্রতি তিনি নিজ দেশে ফেরার জন্য আওয়াজ তুলছেন। 

শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন উপলক্ষে জন্মাষ্টমী পালন করা হয়। এদিন গোটা বিশ্বের হিন্দু ধর্মালম্বীরা উপবাস রাখেন এবং মন্দিরে প্রার্থনা করেন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, পাকিস্তানে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়ে হামলার ঘটনা বেড়েছে। দেশটি সংখ্যালঘুদের স্বার্থ রক্ষা না করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বারবার পাকিস্তানের প্রতি নিন্দা জানিয়েছে।

এই মাসের শুরুর দিকেও একদল উচ্ছশৃঙ্খল মানুষ পাকিস্তানের রহিম ইয়ার খান ভং গ্রামে একটি হিন্দু মন্দির ভাংচুর করে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0978 seconds.