• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৬:৪৪:৪২
  • ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৬:৪৪:৪২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে পারবেন না মেয়েরা

ছবি : সংগৃহীত

দেশের সব থেকে বড় বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েদের প্রবেশ নিষিদ্ধ হয়ে গেল। নারী শিক্ষার্থী, শিক্ষিকা  কোনও মহিলাই আর ঢুকতে পারবেন না কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে। বুধবার এই ফরমান জারি করে কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনিযুক্ত উপাচার্য বলেন, ‘‘যত দিন পর্যন্ত দেশে ইসলামি আবহ তৈরি না-হচ্ছে, তত দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে আমি মেয়েদের এখানে প্রবেশ করতে দিতে পারি না। আগে ইসলাম, পরে অন্য সব কিছু।’’

দিন কয়েক আগে উচ্চশিক্ষিত ও বর্ষীয়ান মহম্মদ ওসমান বাবুরিকে সরিয়ে উপাচার্য করা হয় তরুণ ও শুধু স্নাতকধারী তালিবান-পন্থী আশরফ গৈরাটকে। যার প্রতিবাদে ইস্তফা দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮০ জন শিক্ষক। বিতর্কিত মন্তব্য করার জন্য আফগানিস্তানের প্রগতিশীল শিক্ষিত মহল আশরফকে আদপেই পছন্দ করে না। মেয়েদের স্কুল প্রসঙ্গে তিনি কয়েক দিন আগেই বলেছিলেন, ‘‘সেগুলো যৌনদাসী তৈরির কারখানা।’’

এ ধরনের প্রতিক্রিয়াশীল কথাবার্তা বলে থাকলেও খাস কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় নিয়েই গৈরাট যে এমন একটা সিদ্ধান্ত নেবেন, তা সম্ভবত কেউ-ই ভাবেনি। ১৯৯৬-২০০১ সালেও শরিয়ত আইনের দোহাই দিয়ে মহিলাদের ঘরবন্দি-সহ নানা নিদান জারি করেছিল তালিবান। যদিও তালিবানের তরফে মুখপাত্র জ়বিউল্লা মুজাহিদ বারবার দাবি করেছিলেন, পূর্বতন তালিবান জমানার পুনরাবৃত্তি ঘটবে না এ বার। নয়া রূপে তালিবানকে দেখতে পাবে গোটা বিশ্ব। কিন্তু তা যে নিছকই কথার কথা, তা স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে মেয়েদের উচ্চশিক্ষার উপরে কোপ পড়ার মতো ঘটনায়। তা ছাড়া, মহিলাদের নিপীড়ন, সংবাদমাধ্যমের উপরে আক্রমণ থেকে শুরু করে শিশু হত্যা... একের পর এক ঘটনা ঘটেই চলেছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0675 seconds.