• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৩ অক্টোবর ২০২১ ০৯:৫২:০৪
  • ২৩ অক্টোবর ২০২১ ০৯:৫২:০৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

সেদিন মন্দিরে হামলা ভাঙচুরেও ইকবাল

ছবি : সংগৃহীত

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে রাতে পবিত্র কোরআন শরিফ রেখেছিলেন ইকবাল হোসেন। দিনে তা নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে তিনি সরাসরি মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরেও অংশ নেন। ১৩ অক্টোবর দিনে কুমিল্লায় বিক্ষুব্ধ জনতার মিছিলের অগ্রভাগে ছিলেন ইকবাল। সেই মিছিল থেকে কুমিল্লার বিভিন্ন এলাকায় মন্দিরে হামলা চলে সে সময়ও ভূমিকা রাখেন তিনি। পুলিশের আরেকটি নতুন ভিডিওতে ইকবালকে মন্দিরে আক্রমণকারীর ভূমিকায় দেখা যায়। তদন্তসংশ্নিষ্ট একাধিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা গতকাল এ তথ্য জানান।

কর্মকর্তারা জানান, মন্দিরে কোরআন শরিফ রাখার পরপরই ইকবাল পালিয়ে যাননি। গভীর রাতে মণ্ডপে কোরআন শরিফ রাখার পর সকালে হামলার সময়ও তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। পরে র‌্যাব-পুলিশের উপস্থিতি দেখে ভয়ে প্রথমে ট্রেনযোগে চট্টগ্রাম যান; সেখান থেকে বাসযোগে কক্সবাজারে চলে যান। সেখানে বেড়াতে যাওয়া তিন যুবক বৃহস্পতিবার সমুদ্রসৈকতে ইকবালকে উদভ্রান্তের মতো ঘোরাঘুরি করতে দেখেন। তার চেহারা তিন বন্ধুর চেনাচেনা লাগছিল। পরে তাদের মনে হয় ওই যুবকের চেহারার সঙ্গে কুমিল্লার মন্দিরে ঘটনায় অভিযুক্তের মিল রয়েছে। তাদের অনুসন্ধিৎসু মন আর সচেতনতায় গ্রেপ্তার হন ইকবাল।

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তারের পর কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ইকবালকে কুমিল্লায় আনা হয়। গতকাল শনিবার পুলিশ সদর দপ্তর, কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট, অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ), কুমিল্লা জেলা পুলিশ, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি), পুলিশের বিশেষ শাখাসহ (এসবি) আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আরও কয়েকটি ইউনিটের পক্ষ থেকে ইকবালকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এটা এক ধরনের 'যৌথ জিজ্ঞাসাবাদ'।

জিজ্ঞাসাবাদের সঙ্গে যুক্ত একজন কর্মকর্তা জানান, নানুয়ার দীঘিরপাড়ে দর্পন সংঘের অস্থায়ী পূজাম পে কোরআন শরিফ রাখার পর হনুমানের মূর্তি থেকে গদা সরিয়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন ইকবাল। তবে কার নির্দেশে তিনি কাজটি করেছেন, তা এখনও জানাননি। এ ব্যাপারে ইকবাল দাবি করেছেন, নিজে থেকেই তিনি মন্দিরে যান। সেখানে মূর্তি দেখে তার ভালো লাগেনি। তার মনে হয়েছে, মন্দিরে কোরআন শরিফ রাখলে সেখানে পূজা-অর্চনা হবে না। পূজায় ব্যাঘাত সৃষ্টি করার জন্য এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন।

তবে ইকবালের এমন 'সহজ স্বীকারোক্তি'কে বিশ্বাসযোগ্য মনে করছেন না তদন্তসংশ্নিষ্টরা। তারা বলছেন, ইকবালকে কেউ ব্যবহার করেছে। সেই নামটি হয়তো আড়াল করছেন তিনি।

তদন্তসংশ্নিষ্ট একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা বলছেন, কুমিল্লার ঘটনার এক দিন পর ১৪ অক্টোবর সকাল সোয়া ১০টার দিকে পুলিশ একটি সিসিটিভি ফুটেজ পায়। ওই ফুটেজে দেখা যায়, গদা হাতে একজন ঘোরাঘুরি করছেন। প্রথমে তদন্তসংশ্নিষ্টরা এটিকে লাঠি মনে করেছিলেন। পরে তারা গদা নিশ্চিত হওয়ার পর মন্দির ভাঙচুরের আগে-পরের একাধিক ছবির সঙ্গে মিলিয়ে দেখেন। এক পর্যায়ে তারা নিশ্চিত হন, ওই যুবক মন্দিরে ঢোকার পর থেকে গদা নেই। এরপর সিসিটিভির ফুটেজের ছবি দেখতে পাওয়া ব্যক্তির পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য এলাকার অনেকের কাছ থেকে তথ্য নেন। ১৪ অক্টোবর বিকেলেই পুলিশ মোটামুটি নিশ্চিত হয় সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায় যুবক নগরীর ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের সুজানগরসংলগ্ন দ্বিতীয় মুরাদপুর লস্করপুকুরপাড় এলাকার বাসিন্দা। তার বাবা নুর আহমেদ আলম পেশায় মাছ ব্যবসায়ী।

এ ছাড়া এলাকাবাসী পুলিশকে জানান, কুমিল্লায় মন্দিরে হামলা-ভাঙচুরে ইকবালকে অংশ নিতে অনেকে দেখেছেন। এরপর আরেকটি ফুটেজ পুলিশের হাতে আসার পর সে ব্যাপারে নিশ্চিত হয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

তদন্তসংশ্নিষ্ট আরেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জানান, কয়েকটি মৌলিক প্রশ্নের উত্তর এখনও স্পষ্ট করেননি ইকবাল। কেন মন্দিরে কোরআন রাখার জন্য জনশূন্য এক রাতকে বেছে নেওয়া হলো, কেউ তাকে টাকার বিনিময়ে ভাড়াটে হিসেবে ব্যবহার করেছেন কিনা, দীর্ঘদিন ধরে কেন মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন না- এসব প্রশ্নের কোনো উত্তর তিনি দেননি।

ইকবাল কারও প্ররোচনায় মন্দিরে কোরআন রাখার কাজটি করেছেন কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে ওই কর্মকর্তা বলেন, কয়েক বছর আগে গাজীপুরে পূজা চলাকালে অভিনব একটি ঘটনা ঘটে। মণ্ডপ থেকে কিছুটা দূরে ছিল একটি মসজিদ। হঠাৎ একদিন মসজিদ থেকে আজান দেওয়ার পরপরই পূজামণ্ডপের মাইক থেকে উচ্চ স্বরে গান বেজে ওঠে। এটা শুনে দ্রুত মণ্ডপ এলাকায় যান পূজার আয়োজকরা। আজানের সময় পূজামণ্ডপের মাইক বন্ধ রাখার কথা আগে থেকে বলা থাকলে কেন তা বেজে উঠল, এর কারণ তাৎক্ষণিকভাবে অনুসন্ধান করেন তারা। তখন মণ্ডপে উপস্থিত অনেকে জানান, এক কিশোর এসে মণ্ডপে এসে মাইকটি হঠাৎ চালু করে চলে যায়। খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, যে কিশোর ওই ঘটনা ঘটায় তার পরিবার ওই এলাকায় ফুটপাতে বসবাস করে। স্থানীয় এক মৌলভী ওই কিশোরকে দুইশ টাকা দিয়ে আজান চলার সময় পূজার মাইক চালু করতে বলেন। পরে বেরিয়ে আসে, এর মূল উদ্দেশ্য ছিল আজানের সময় উচ্চ স্বরে গান বাজানোর বিষয়টিকে পুঁজি করে মসজিদের অদূরে থাকা পূজামণ্ডপ উঠিয়ে দেওয়ার বন্দোবস্ত করা। শেষ পর্যন্ত ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হয়নি। মৌলভীকে পরে আটক করা হয়।

এই ঘটনার উদাহরণ দিয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, কুমিল্লায় ইকবালকে কেউ না কেউ ব্যবহার করেছে। কেউ বড় ধরনের অশুভ পরিকল্পনা করেই ইকবালের মতো যুবককে বেছে নেয়। হয়তো স্থানীয় ওই চক্রের পেছনে আরও কেউ থাকতে পারে।

স্বজন ও স্থানীয়দের অনেকে ইকবালকে 'ভবঘুরে', 'মাজারভক্ত' ও 'মানসিক ভারসাম্যহীন' বলে উল্লেখ করছেন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এ বিষয়গুলো আরও গভীরভাবে অনুসন্ধান করছে বলে জানিয়েছে। তবে তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন- এর স্বপক্ষে এরই মধ্যে বেশ কিছু তথ্য-প্রমাণ পুলিশের হাতে এসেছে। পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, বখাটে-ভবঘুরে হয়ে থাকলেও ইকবালকে পুরোপুরি মানসিক ভারসাম্যহীন মনে হয়নি। এটা হলে পালিয়ে নিজেকে রক্ষা করতে হবে- এই বোধ তার থাকার কথা ছিল না।

কুমিল্লার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেন, 'মণ্ডপে কোরআন রাখা, সরবরাহ করা আর এসবের নেপথ্যে কেউ আছে কিনা সব বিষয়েই আমরা ইকবালকে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। সব কিছু নিশ্চিত না হয়ে এখনই মন্তব্য করা ঠিক হবে না।'

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

মন্দিরে হামলা

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0721 seconds.