• ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • ১৮ মে ২০২২ ১৭:৪৪:৩৫
  • ১৮ মে ২০২২ ১৭:৪৪:৩৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

৫ হাজার রানের কীর্তির দিনে মুশফিকের সেঞ্চুরি

ছবি : সংগৃহীত

মুশফিকুর রহিমের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স নিয়ে একটুআধটু সমালোচনা হচ্ছিল। চট্টগ্রামে সমালোচকদের দিলেন জবাব। ৮১তম টেস্টে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে পাঁচ হাজার টেস্ট রানের মালিক হওয়ার দিনে করলেন অষ্টম সেঞ্চুরি। দুই বছরেরও বেশি সময় পর সাদা পোশাকে তিন অঙ্কের জাদুকরী ফিগার স্পর্শ করলেন ৩৫ বছর বয়সী ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

২০২০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি মিরপুরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে করা সপ্তম সেঞ্চুরিকে দুইশতে নেন মুশফিক। তারও আগের সেঞ্চুরিকে রূপ দেন ডাবলে। বুধবার চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিন দ্বিতীয় সেশনের শেষদিকে ২৭০ বলে চারটি চারে করলেন সেঞ্চুরি। তার আগে সকালের সেশনে করেন পাঁচ হাজার রানের কীর্তি।  

মুশফিকের শুরুটা হয়েছিল লর্ডসে, ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হাবিবুল বাশারের নেতৃত্বে প্রথমবার পান টেস্ট ক্যাপ। ৮১ টেস্ট খেলে সেই মুশফিকুর রহিম এমন কীর্তি গড়লেন সবার আগে, যা করতে পারেননি বাংলাদেশের কেউই।

স্বপ্নডানায় চড়ে মুশফিক প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে পাঁচ হাজার টেস্ট রানের মালিক হলেন। বুধবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে এই অর্জনে নাম লিখলেন তিনি। কাকতালীয় হলো, এই চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি হাঁকান। যা এখন বেড়ে দাঁড়িয়ে আটে। ৮১ ম্যাচ খেলে পাঁচ হাজারি ক্লাবে মুশফিক।

সর্বোচ্চ টেস্ট রানের মালিক হওয়ার পথে তিনটি ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ২০১৩ সালে গলেতে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে করেছিলেন ২০০ রান, বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে সবার আগে। সেই লঙ্কানদের বিপক্ষে সবার আগে পাঁচ হাজারি টেস্টের কীর্তি মুশফিকের। এরপর ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন ২০১৮ ও ২০২০ সালে মিরপুরে, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানও তার, অপরাজিত ২১৯।

এই কীর্তি গড়তে চট্টগ্রামে ৬৮ রান করতে হতো মুশফিককে। বুধবার দ্বিতীয় ঘণ্টায় তার ব্যাটে রাঙা হয় নতুন ইতিহাস। দ্বিতীয় ঘণ্টার দ্বিতীয় ওভার। পেসার আশিথা ফার্নান্দোর শর্ট বল ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু তার গ্লাভসে লেগে বল যায় ডিপ ফাইন লেগে।

২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত রেকর্ড ৩৪ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে মুশফিক সর্বোচ্চ ৭টি জয়ে বাংলাদেশের সফল টেস্ট অধিনায়ক। ড্র ৯টি ও হার ১৮টি। সবকিছুতেই এগিয়ে মুশফিক। এবার তামিম ইকবালকে পেছনে ফেলে সবার আগে গড়লেন অনন্য কীর্তি, আর নিজের এই অর্জনকে রাঙালেন অষ্টম সেঞ্চুরিতে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

মুশফিকুর রহিম

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.1129 seconds.