• ক্রীড়া ডেস্ক
  • ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০০:১০:৩৪
  • ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০০:১০:৩৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

দুর্দান্ত ব্রুক-ডাকেটে পাকিস্তানকে হারালো ইংল্যান্ড

ছবি : সংগৃহীত

সাত ম্যাচ সিরিজে ১-১ এ সমতা। সিরিজে এগিয়ে যাওয়ার মিশনে দুর্দান্ত ব্যাটিং উপহার দেন ইংল্যান্ডের বেন ডাকেট ও হ্যারি ব্রুক। দু'জনের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের পর বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে পাকিস্তানকে ৬৩ রানে হারায় ইংল্যান্ড।

এরআগে, আজ শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) করাচীতে টস ভাগ্যে জয়ী পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম নেন বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত। সাত ম্যাচ সিরিজে ১-১ এ সমতায় থাকলেও ইংল্যান্ডের একাদশে আসে পরিবর্তন, হেলসের জায়গায় সুযোগ হয় উইল জ্যাকসের। ফিলিপস ও জ্যাকসের নতুন শুরু হয়নি রাজসিক, দলীয় ১৮ রানেই ভাঙে এই জুটি। ফিলিপস সল্টের বিদায়ের পর জ্যাকসের সাথে জুটি বাঁধেন তেভিড মালান।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় ইংল্যান্ড। অভিষিক্ত উইল জ্যাকসের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে পাওয়ার প্লেতে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১ উইকেট হারিয়ে ৫৭ রান। পাওয়ার প্লে শেষ হতেই সাজঘরে ফিরেন মালান। একপ্রান্তে উইল জ্যাকস এগিয়ে যেতে থাকেন বড় সংগ্রহের দিকে। কিন্তু সেটি আর সম্ভব হয়নি ওসমান কাদিরের দুর্দান্ত বোলিংয়ে। সাজঘরে ফেরার আগে জ্যাকস খেলেন ২২ বলে ৪০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। এরপর চতুর্থ উইকেট জুটিতে দলকে এগিয়ে নেওয়ার লড়াই শুরু করেন বেন ডাকেট ও হ্যারি ব্রুক। ১০ ওভার শেষে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩ উইকেট হারিয়ে ৮৯ রান।

১০ ওভার শেষ হতেই বদলে যেতে থাকে ম্যাচের দৃশ্যপট। চড়াও হয়ে উঠে ব্রুক ও ডাকেটের ব্যাট। পাকিস্তানের বোলারদের কোণঠাসা করে দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন দুই ইংরেজ ব্যাটার। দুইজনই দেখা পান ফিফটির। ম্যাচে ডাকেট অপরাজিত থাকেন ৬৯ রানে, দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮১ রান আসে ব্রুকের ব্যাটে। ২০ ওভার শেষে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩ উইকেট হারিয়ে ২২১ রান। এটি পাকিস্তানের মাঠে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। 

ইংল্যান্ডের ব্যাটারদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের দিনে পাকিস্তানের পেসার শাহনেওয়াজ দাহানী ৪ ওভারে খরচ করেন ৬২ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২ উইকেট শিকার করেন ওসমান কাদির। পাকিস্তানের সামনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২২২ রান।

২২২ রানের জয়ের লক্ষ্যকে সামনে রেখে ব্যাটিংয়ে আসেন গতম্যাচের দুই হিরো বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। বড় রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই বাবর আজমের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে পাকিস্তান। সেই চাপ আরও বেড়ে যায় রিজওয়ান ও হায়দার আলীর বিদায়ে। মার্ক উড ও রোস ত্রিপলির দুর্দান্ত বোলিংয়ের বিপক্ষে কোনঠাসা হয়ে পড়ে পাকিস্তান। পাওয়ার প্লে শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৪ উইকেট হারিয়ে ২৯ রান।

বড় রান তাড়ায় শুরুর চাপ জয় করার চেষ্টা করেন শান মাসুদ ও খুশদীল শাহ। পঞ্চম উইকেট জুটিতে পঞ্চাশ রান সংগ্রহ করে দলের জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখেন তারা। কিন্তু দলীয় ৯০ রানে খুশদীল শাহ ফিরেলে ভাঙে ৫২ রানের জুটি। একপ্রান্ত আগলে রেখে ফিফটি তুলে নেন শান মাসুদ। ম্যাচে মাসুদ ৬৬ রানে অপরাজিত থাকলেও পাকিস্তানকে জয় এনে দিতে পারেননি সতীর্থদের ব্যর্থতায়। মার্ক উডের ৩ উইকেট ও আদিল রশিদের দুই উইকেটে পাকিস্তানকে থামতে হয় ১৫৮ রানে। ইংল্যান্ড জয় পায় ৬৩ রানের বিশাল ব্যবধানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: 

ইংল্যান্ড - ২২১/৩(২০ ওভার)
ব্রুক ৮১*, ডাকেট ৬৯*, জ্যাকস ৪২
ওসমান কাদির ৪৮/২

পাকিস্তান - ১৫৮/৮(২০ ওভার)
মাসুদ ৬৬*, খুশদীল ২৯
উড ২৫/৩, রশিদ ৩২/২

ফলাফল: ইংল্যান্ড ৬৩ রানে জয়ী।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0646 seconds.