• বিদেশ ডেস্ক
  • ১২ নভেম্বর ২০২২ ১৯:৩৭:৪৬
  • ১২ নভেম্বর ২০২২ ১৯:৩৭:৪৬
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

পালানো ছাড়া রাশিয়ার কোনো পথ ছিল না: ইউক্রেনের সেনাপ্রধান

ছবি : সংগৃহীত

ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলের খেরসন শহর থেকে সেনাসদস্যদের সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। এ নিয়ে ইউক্রেনের সেনাপ্রধান ভ্যালেরি জালুঝনি বলেছেন, সেনাদের সরিয়ে নেওয়া ছাড়া মস্কোর সামনে আর কোনো পথ খোলা ছিল না।

বৃহস্পতিবার বার্তা আদান–প্রদানের অ্যাপ টেলিগ্রামে একটি পোস্ট করেন ইউক্রেনের সেনাপ্রধান জালুঝনি। খবর বিবিসির। 

ভ্যালেরি জালুঝনি বলেন, খেরসন থেকে পালানো ছাড়া রাশিয়ার সামনে আর কোনো পথ খোলা ছিল না। এটা সম্ভব হয়েছে ইউক্রেনের মানুষের কঠোর পরিশ্রমের জন্য। এখন পর্যন্ত খেরসনের ১ হাজার ৩৮১ বর্গকিলোমিটার এলাকা দখলমুক্ত করা হয়েছে।

বুধবার সেনা প্রত্যাহারের নির্দেশ দেয় মস্কো। খেরসন শহর ছাড়াও নিপার নদীর পশ্চিম পার থেকে রুশ সেনাদের সরিয়ে নিতে বলা হয় ওই নির্দেশনায়। গত ৯ মাসের যুদ্ধে ইউক্রেনে বিভিন্ন অঞ্চলের রাজধানীগুলোর মধ্যে শুধু খেরসন শহরই রাশিয়ার দখলে ছিল।

কৃষ্ণসাগরের উপকুলের কাছে দনিপ্রো নদীর তীরের এই খেরসন শহরটি ক্রাইমিয়া থেকে বেশি দূরে নয়- যা ২০১৪ সালে রাশিয়া তার নিজের অন্তর্ভুক্ত করেছিল। ইউক্রেন যদি খেরসন পুনর্দখল করে তাহলে তা ক্রাইমিয়া পুনর্দখলেরও দরজা খুলে দেবে এমন মনে করা যেতে পারে। এ জন্যই রাশিয়ার দিক থেকে খেরসন দখলে রাখা এক গুরুত্বপূর্ণ, বলছেন বিশ্লেষকরা।

বিশ্লেষকদের মতে, রুশ সৈন্যরা তাদের প্রত্যাহারকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে তবে পাশাপাশি ইউক্রেনের সৈন্যদের অগ্রাভিযান বিলম্বিত করছে। এর অর্থ - লড়াই এখনো চলবে এবং কিয়েভ একে কোন সুযোগ হিসেবে দেখবে না।

ইউক্রেনীয় ট্যাংকগুলো কোন বাধা ছাড়াই বিজয়ীর বেশে খেরসন শহরে ঢুকবে এমনটাও হয়তো হবে না, বলেন তিনি।

ব্রিটিশ সরকারের সবশেষ মূল্যায়নে বলা হয়, রুশ বাহিনী হয়তো ইউক্রেনীয় সৈন্যদের অগ্রাভিযান বিলম্বিত করতে সেখানে মাইন পেতে রেখেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, রুশ বাহিনীকে খেরসন থেকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত থেকে বোঝা যায় যে রুশ সামরিক বাহিনী প্রকৃতপক্ষেই সমস্যায় পড়েছে।

অন্যদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ জেনারেল মার্ক মিলি বলছেন, ইউক্রেনের যুদ্ধ শুরু হবার পর থেকে এ পর্যন্ত এক লক্ষেরও বেশি রুশ সৈন্য ও ৪০ হাজার বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। তিনি নিউইয়র্কে বলেন, নিহত ইউক্রেনীয় সৈন্যর সংখ্যাও এক লক্ষের মত হবে।

ইউক্রেনের সেনাবাহিনী বলছে, রুশ বাহিনী অধিকৃত খেরসনের বাসিন্দাদের শহরের বাইরে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে- কারণ লোকেরা এভাবে যেতে ইচ্ছুক নয়। ইতোমধ্যে শহরটি থেকে হাজার হাজার লোক বের করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তবে কিয়েভ বলছে, এগুলো জোরপূর্বক করা হয়েছে।

ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী বলছে, রুশরা স্থানীয় বাসিন্দাদের সামাজিক ভাতা ও বেতন দেয়াও বন্ধ করে দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়

ইউক্রেন সেনাপ্রধান

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.5929 seconds.