• বাংলা ডেস্ক
  • ০১ জুন ২০১৭ ১৭:১৯:৩০
  • ০১ জুন ২০১৭ ১৮:০৪:৫৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ইফতারে কেন খেজুর খাবেন?

রমজান মাসে ইফতারে খেজুর অনেকটা আবশ্যকীয় উপাদানে পরিণত হয়েছে

রমজান মাস চলছে। সারা দিন রোজা তথা সিয়াম পালন করে সূর্যাস্তের পর কিছু মুখে দেওয়া- রমজান মাসের এটাই রেওয়াজ। যুগ যুগ ধরে দেশে দেশে রমজানের ইফতারে খেজুর খাওয়ার রীতি। নবী মোহাম্মদ (সা.) ও তাঁর সঙ্গীরা খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন বলে মুসলমানরা ইফতারে তা গুরুত্বসহকারে খায়।
ইফতারে খেজুর খাওয়া শরীরের জন্যও খুব ভাল। ভারতের দিল্লির এক বেসরকারি হাসপাতালের ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনিস্ট লভনীত বাত্রা জানাচ্ছেন, খেজুর খাওয়ার উপকারিতা।

এনার্জি

খেজুরের পুষ্টিগুণ প্রচুর। সুগারের পরিমাণ এত বেশি থাকে খেজুরে যে এক কামড়েই অনেকটা এনার্জি পাওয়া যায়। এর মধ্যে আয়রন, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফাইবার, গ্লুকোজ, ম্যাগনেশিয়াম ও সুক্রোজ থাকে। যে কারণে খেজুর খাওয়ার মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যে শরীরে এনার্জি বেড়ে যায়। সারা দিন উপোস করে শরীরে ক্লান্তি আসে, তা দূর করে এনার্জি জোগাতে সাহায্য করে খেজুর।

অ্যাসিডিটি

উপোস করলে সাধারণত অ্যাসিডিটি হয়। যার থেকে অস্বস্তি হতে থাকে। খেজুর শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বশে রেখে অস্বস্তি কমায়।

বেশি খাওয়া

সারা দিন না খেয়ে থাকলে খাওয়ার সময় বেশি খেয়ে ফেলার প্রবণতা তৈরি হয়। তাই খেজুর খেয়ে উপোস ভাঙলে এর মধ্যে থাকা জটিল কার্বোহাইড্রেট হজম হতে বেশি সময় নেয়। ফাইবার থাকার কারণে পেট ভরা লাগে। তাই বেশি খাওয়ার আগেই পেট ভরে যায়।

হজম

অনেক ক্ষণ না খেয়ে থাকলে তা পৌষ্টিকতন্ত্রের কার্যকারিতায় ব্যাঘাত ঘটায়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও হতে পারে। খেজুর শরীরে উত্‌সেচক ক্ষরণে সাহায্য করে। ফলে হজম ভাল হয়।

ডিটক্সিফিকেশন

উপোস করার ফলে শরীরে যে খারাপ কোলেস্টেরল জমা হয় তা ডিটক্সিফাই করতে সাহায্য করে খেজুর।

আনন্দবাজার পত্রিকা অবলম্বনে

সংশ্লিষ্ট বিষয়

খেজুর ইফতার

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.2744 seconds.